অসাম্প্রদায়িক ও মুক্তমনা ছিলেন অধ্যক্ষ কোরায়শী || নাগরিক শোকসভায় বক্তারা

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৭, ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



রাজশাহী সিটি কলেজের সাবেক উপাধক্ষ, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সাবেক কলেজ পরিদর্শক ও রাজশাহী মহানগর কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ শামসুল হক কোরায়শীর স্মরণে নাগরিক শোকসভায় বক্তারা বলেছেন, অধ্যক্ষ শামসুল হক কোরায়শী অসম্প্রদায়িতক প্রকৃতির ছিলেন। তিনি বংশ পরম্পরায় ধর্ম চর্চা করলেও তিনি ছিলেন মুক্তমনা। তিনি তীক্ষè বুদ্ধি সম্পন্ন ও বড় মাপের এবং দূরদর্শি চিন্তার মানুষ ছিলেন। এজন্য তিনি সবার হৃদয়ে স্মৃতি হয়ে আছেন। তাই আজো আমরা তাকে ভুলতে পারি নি। গতকাল শনিবার বিকেলে নগরীর মিয়াপাড়া সাধারণ গ্রন্থাগার মিলনায়তনে আয়োজিত নাগরিক শোক সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
বক্তারা আরো বলেন, অধ্যক্ষ শামসুল ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, রবীন্দ্র ও বঙ্গবন্ধু প্রেমি। তিনি ছিলেন সত্যের দিশারি। ভাষা আন্দোলনে ব্যাপক ভূমিকা ছিল তার। এছাড়া তিনি একাধারে সংস্কৃতিকর্মী বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও শিক্ষাবিদও ছিলেন। তার কর্মময় জীবনের আর্দশ সমাজে দৃশ্যমান হয়ে থাকবে।  আজকের এ শোকসভায় তার বর্ণাঢ্য জীবন ও কর্মের মূল্যায়ন এবং আত্মার কল্যাণ কামনায় শোক সভার আয়োজন করা হয়েছে।
এতে স্বাগত বক্তব্য দেন, নাগরিক শোকসভা কমিটির সদস্য সচিব ড.তসিকুল ইসলাম রাজা। অধ্যক্ষ কোরায়শীর জীবন বৃত্তান্ত পাঠ করেন, মনিরা রহমান মিঠি। নাগরিক শোকসভা কমিটির আহ্বায়ক কবি রুহুল আমিন প্রামাণিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শোকসভায় অংশগ্রহণ করেন, ভাষাসৈনিক মোশাররফ হোসেন আখুঞ্জি, রাবির সাবেক ভিসি প্রফেসর সাইদুর রহমান খান, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর কায়েস উদ্দিন, কবি আরিফুল হক কুমার, প্রফেসর সনৎকুমার সাহা, প্রফেসর গোলাম কবীর, কলামিস্ট প্রশান্ত সাহা, প্রবীন সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান খান আলম, কবি মিজানুর রহমান, প্রফেসর বাদশা আলম, প্রফেসর নুরল আলম, গোলাম কবীর, নগর আ’লীগের সহসভাপতি মোহাম্মদ আলী কামাল, প্রফেসর ফরিদা সুলতানা, কবি সাইফুল ইসলাম ও মহানগর কলেজের শিক্ষক মোল্লা আবুল কালাম প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ