অসুরের বদলে দেবী দুর্গার পায়ের নিচে গান্ধীজি! হিন্দু মহাসভার পুজো ঘিরে তুঙ্গে বিতর্ক

আপডেট: অক্টোবর ৩, ২০২২, ১:০২ অপরাহ্ণ

বিতর্কিত সেই দুর্গামূর্তি

সোনার দেশ ডেস্ক :


দেবী দুর্গার হাতে বধ হচ্ছেন মহিষাসুর নয়, মহাত্মা গান্ধী! এমনই প্রতিমা সজ্জা দেখা গেল কসবার রুবি পার্কে। হিন্দু মহাসভা আয়োজিত এহেন দুর্গাপুজো ঘিরে স্বভাবতই তুঙ্গে বিতর্ক। তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে হিন্দু মহাসভা।

তৃণমূলের তরফে প্রতিক্রিয়া দিয়ে কঠোর নিন্দা করা হয়েছে। দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেছেন, ‘‘বিজেপির আসল মুখ সামনে এসেছে। ওরা আসলে গডসের পূজারি, গান্ধীর হত্যাকারীদের পূজারি।’’

রবিবার, সপ্তমীর সন্ধ্যা পেরতেই দুর্গাপ্রতিমার বিতর্কিত ছবি সামনে আসে। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে তা ছড়িয়ে পড়তে বেশি সময় লাগেনি। দেখা যায়, দেবী দুর্গার পায়ের নিচে গান্ধীজি। সেই মূর্তিকেই অসুর হিসেবে বধ করা হচ্ছে। তার চোখে গান্ধীজির প্রতীকী চশমাও।

গোটা ঘটনায় রাজনৈতিক মহলে তীব্র নিন্দা ছড়িয়েছে। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেছেন, ‘‘এবার ওরা নানাভাবে দোষ ঢাকতে নামবে। কিন্তু এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি। গান্ধীজিকে নিয়ে নানা গবেষণা হতে পারে।

তিনি জাতির জনক।’’ তাঁর কথায়, ‘‘গান্ধীজি আন্তর্জাতিক ইতিহাসে ভারতবর্ষের অন্যতম প্রতীক। তাঁকে নিয়ে এমন অবমাননা কোনওভাবে বরদাস্ত করা যায় না। এসব বিজেপির অন্তরাত্মা।’’

পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়ায়ও এর বিরোধিতা করে সমালোচনা শুরু হয়ে যায়। কবীর সুমনের মতো বিশিষ্ট ব্যক্তিরা কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন এ নিয়ে।
এসবের পরই অবশ্য নড়েচড়ে বসেন পুজোর আয়োজকরা। দ্রæত গান্ধীজির ওই চেহারা বদলানো হয়। মূর্তিতে গোঁফ ও মাথায় চুল পরিয়ে অসুরের চেহারা দেওয়ার চেষ্টা করেন তাঁরা। খুলে নেওয়া হয় চশমাও।

প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারও খানিক হোঁচট খেয়েছেন। তাঁর কথায়, ‘‘এরকম হয়ে থাকলে খারাপ বিষয়।’’ বিষয়টি নিয়ে হিন্দু মহাসভার তরফে ওই পুজো কমিটির কর্তা চন্দ্রচূড় গোস্বামী বলেছেন, ‘‘উপরওয়ালার চাপে গান্ধীজির চেহারা বদলাতে হল।’’

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীও এই নিয়ে নিন্দায় সরব হয়েছেন। বলেছেন, হিন্দুত্বের ধ্বজাধারী হয়ে আসলে তাঁরা মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরি করছে। এদিন একাধিক জায়গায় তৃণমূল গান্ধী জয়ন্তী পালন করেছে।

মেয়ো রোডে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সী ও বিধায়ক তাপস রায় শ্রদ্ধার্ঘ্য জানিয়ে এসেছেন। অন্যদিকে, কলকাতা পুরসভাতেও মেয়র ফিরহাদ হাকিম শ্রদ্ধা জানিয়েছেন গান্ধীজির প্রতিকৃতিতে। এর পরেই রুবি পার্কের দুর্গাপ্রতিমার ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। যা নিয়ে রাজ্যজুড়ে বিতর্ক তৈরি হয়। শেষে বিতর্কের মুখে পরিস্থিতি সামাল দিতে চেহারা বদলানো হয় গান্ধীজির।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ