অস্ট্রেলিয়ার প্রস্তুতি ম্যাচ: বিকল্প ভেন্যুর ভাবনা বিসিবির

আপডেট: জুলাই ৩০, ২০১৭, ১১:৫৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ফতুল্লা স্টেডিয়ামের বর্তমান অবস্থা

দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া আসবে কিনা, তা নিশ্চিত নয় এখনও। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) অবশ্য স্মিথ-ওয়ার্নাররা আসবেন ধরে নিয়ে প্রস্তুত হচ্ছে সিরিজের জন্য। তবে সমস্যা বেধেছে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম নিয়ে। টেস্ট সিরিজ শুরু হওয়ার আগে এই স্টেডিয়ামেই একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার কথা অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু টানা বৃষ্টিতে ফতুল্লা স্টেডিয়ামের বেহাল দশা এখন। বিসিবি তাই প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য বিকল্প ভেন্যুর চিন্তা-ভাবনা করছে।
ফতুল্লায় দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচটি হওয়ার কথা ২২ ও ২৩ আগস্ট। অর্থাৎ হাতে এক মাসও সময় নেই। এর মধ্যে স্টেডিয়ামটি ম্যাচ আয়োজনের জন্য প্রস্তুত করা যাবে কিনা, তা বলা মুশকিল। গত কয়েক সপ্তাহের টানা বৃষ্টিতে ভেসে গেছে মাঠ, পাঁচটি প্রবেশদ্বারের চারটিই তলিয়ে গেছে পানিতে।
বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির চেয়ারম্যান হানিফ ভূঁইয়া তাই বিকল্প ভেন্যুর কথা ভাবছেন। শনিবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘ফতুল্লা স্টেডিয়ামের এখন যা অবস্থা, তাতে সেখানে ম্যাচ আয়োজন খুব কঠিন হয়ে পড়েছে। এখানে এনএসসিরও (জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ) একটা বড় ভূমিকা আছে। মাঠটা যদি বিসিবির হাতে থাকতো, তাহলে বলতাম যে এখানে প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজন করা সম্ভব।’
ফতুল্লার বিকল্প ভেন্যু নিয়ে তার মন্তব্য, ‘বিসিবির আরও অনেক মাঠ আছ, মাঠ নিয়ে কোনও দুর্ভাবনা নাই। দুই দিনের নোটিশেই মাঠ পাওয়া যাবে। বিকল্প হতে পারে বিকেএসপি। তবে বোর্ড যদি মনে করে এখানে (শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে) প্রস্তুতি ম্যাচের আয়োজন করবে, তাহলেও সমস্যা নেই। এখানে অনেক পিচ আছে।’
তবে দায়সারাভাবে প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজনের পক্ষে নন বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির চেয়ারম্যান, ‘প্রস্তুতি ম্যাচ হলেও এটা দেশের মানুষ দেখতে চাইবে। বয়সভিত্তিক দল ও এইচপির খেলোয়াড়দের জন্য এটা বড় সুযোগ। তাছাড়া অস্ট্রেলিয়ার মতো দলের জন্য আমাদের ভালো লজিস্টিক সাপোর্ট দিতে হবে। তারা আমাদের মেহমান, তাদের কীভাবে ট্রিট করলাম সেটাও দেখার ব্যাপার।’
ক্রিকেট মাঠগুলো বিসিবির অধীনে থাকলে এ ধরনের সমস্যা হতো না বলে মনে করেন হানিফ ভূঁইয়া, ‘ক্রিকেট মাঠগুলো বিসিবির অধীনে থাকলে আমরা চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করতে পারতাম। আমরা নিজেদের ফান্ড থেকে খরচ করে চাইলে অনেক কিছুই করতে পারি। কিন্তু মাঠের মালিকানা আমাদের না হওয়ায় এক্ষেত্রে কিছু করতে পারছি না।’ প্রসঙ্গত, ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের রক্ষণাবেক্ষণ করে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ।-বাংলা ট্রিবিউন