আংশিকভাবে খুলছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ও

আপডেট: June 2, 2020, 2:04 pm

সোনার দেশ ডেস্ক:


আগামী ৬ জুনের পর প্রাথমিক বিদ্যালয় আংশিক খোলা হতে পারে। তবে এখনই এ সংক্রান্ত কোনো নির্দেশনা জারি করা হয়নি।
গত ২৪ এপ্রিল থেকে আগামী ৬ জুন পর্যন্ত প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ থাকছে। এরপর অফিসিয়াল কার্যক্রম ও স্কুল পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য প্রতিষ্ঠান খোলা হতে পারে।
শিগগিরই এ সংক্রান্ত নির্দেশনা আসতে পারে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ফসিউল্লাহ। তিনি বলেন, ‘প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠান খোলা হতে পারে। তবে এটি পাঠদানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নয়।’
এদিকে প্রশাসনিক রক্ষণাবেক্ষণের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অফিস খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে এবং পরিস্থিতি উন্নয়নের লক্ষ্যে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সীমিত আকারে সরকারি দপ্তরসমূহ খোলা রয়েছে। এ প্রেক্ষাপটে দেশের সবশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিস শুধু প্রশাসনিক রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজনে (ছাত্রভর্তি, বিজ্ঞানাগার, পাঠাগার, যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় ইত্যাদি) সীমিত আকারে খোলা রাখা যাবে।
তবে অসুস্থ শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী, সন্তান সম্ভবা নারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হওয়া থেকে বিরত থাকবেন। পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলা হয়েছে।
তথ্যসূত্র: রাইজিংবিডি
আংশিকভাবে খুলছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ও
সোনার দেশ ডেস্ক
আগামী ৬ জুনের পর প্রাথমিক বিদ্যালয় আংশিক খোলা হতে পারে। তবে এখনই এ সংক্রান্ত কোনো নির্দেশনা জারি করা হয়নি।
গত ২৪ এপ্রিল থেকে আগামী ৬ জুন পর্যন্ত প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ থাকছে। এরপর অফিসিয়াল কার্যক্রম ও স্কুল পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য প্রতিষ্ঠান খোলা হতে পারে।
শিগগিরই এ সংক্রান্ত নির্দেশনা আসতে পারে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ফসিউল্লাহ। তিনি বলেন, ‘প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠান খোলা হতে পারে। তবে এটি পাঠদানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নয়।’
এদিকে প্রশাসনিক রক্ষণাবেক্ষণের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অফিস খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে এবং পরিস্থিতি উন্নয়নের লক্ষ্যে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সীমিত আকারে সরকারি দপ্তরসমূহ খোলা রয়েছে। এ প্রেক্ষাপটে দেশের সবশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিস শুধু প্রশাসনিক রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজনে (ছাত্রভর্তি, বিজ্ঞানাগার, পাঠাগার, যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় ইত্যাদি) সীমিত আকারে খোলা রাখা যাবে।
তবে অসুস্থ শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী, সন্তান সম্ভবা নারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হওয়া থেকে বিরত থাকবেন। পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলা হয়েছে।
তথ্যসূত্র: রাইজিংবিডি