আইসিটি রফতানিতে আর্থিক সহায়তা দেবে সরকার

আপডেট: অক্টোবর ২৬, ২০১৬, ১১:৪২ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
আইসিটি রফতানিতে নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। গত শুক্রবার ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় তিন দিনব্যাপী ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৬’ এর শেষ দিনে ‘দ্য রোড টু ফাইভ বিলিয়ন আইসিটি এক্সপোর্ট বাই ২০২১’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, সরকারের সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পকিল্পনায় দেশের রফতানি বাজার সম্প্রসারণ এবং রফতানি পণ্য সংখ্যা বৃদ্ধির কথা বলা হয়েছে। সে অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছে সরকার। নতুন করে যে সব পণ্য রফতানিতে উৎসাহ প্রদান করা হচ্ছে, তার মধ্যে আইসিটি অন্যতম। রফতানির জন্য অগ্রাধিকার খাত হিসেবে আইসিটিকে চিহ্নিত করা হয়েছে।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে আইসিটি রফতানি ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে বৃদ্ধি করা সম্ভব। তখন এ খাতে ২০ লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। আইসিটি রফতানির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সরকার সব ধরনের সহযোগিতা প্রদান করবে। সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন আইসিটি খাতের রফতানি তৈরি পোশাক খাতকে ছাঁড়িয়ে যাবে। দেশের নতুন প্রজন্ম আমাদের ভবিষ্যৎ।
তিনি আরো বলেন, আইসিটি খাত বাংলাদেশের রফতানির জন্য একটি উজ্জ্বল সম্ভাবনাময় খাত। নতুন প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরা এগিয়ে এসেছে এ সেক্টরে কাজ করার জন্য। দেশের চাহিদা মিটিয়ে এখন বাংলাদেশ আইসিটি রফতানি শুরু করেছে। অনেক উন্নত দেশে প্রচুর চাহিদাও রয়েছে -এ সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে।
মন্ত্রী বলেন, দেশের ৫০ বছর পূর্তিতে ২০২১ সালে রফতানি ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আসবে তৈরি পোশাক খাত থেকে। আইসিটি খাত থেকে ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আসলে এ সেক্টর অনেক শক্তিশালী হবে।
বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি মোস্তফা জব্বারের সঞ্চালনায় সেমিনারে মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. রোকনুজ্জামান। এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে আইসিটি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, গেস্ট অব অনার বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটির নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম, আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার এবং বিভিন্ন উদোক্তা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখেন। জাগোনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ