আউশে ৩১ কোটি টাকা প্রণোদনা দেবে সরকার

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৭, ১২:১২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আউশ ধানের উৎপাদন বাড়াতে দেশের ২ লাখ ২০ হাজার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষককে ৩১ কোটি টাকার বীজ ও রাসায়নিক সার দেবে সরকার।
এছাড়া কুমড়া জাতীয় সবজীর মাছি পোকা দমন এবং পাট ও আখের উৎপাদন বাড়াতে আরও ৫ হাজার ৯৮৮ জন কৃষককে ১ কোটি ৯৬ লাখ ১৬ হাজার ৪৬০ টাকার কৃষি উপকরণ সহায়তা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী।
বুধবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী জানান, চলতি খরা মৌসুমে ২ লাখ ২৫ হাজার ৯৮৮ জন কৃষককে মোট ৩২ কোটি ৯০ লাখ ৪৬০ টাকার বীজ, সার ও কৃষি উপকরণ দেওয়া হবে; যা দিয়ে ২ লাখ ২৯ হাজার ৩৭ বিঘা জমিতে আউশ, কুমড়া জাতীয় সবজি ও আখের চাষ হবে।
মতিয়া জানান, চলতি খরা মৌসুমে ৫১ জেলায় ২ লাখ কৃষককে উফশী আউশ আবাদের জন্য ২৭ কোটি ১০ লাখ টাকার বীজ ও রাসায়নিক সার দেয়া হবে। আর ৪০ জেলার ২০ হাজার কৃষক নেরিকা আউশ আবাদে ৩ কোটি ৯০ লাখ টাকার বীজ ও সার পাবেন।
সারা দেশে কুমড়া জাতীয় সবজির মাছি পোকা দমনে ফেরোমন ফাঁদ স্থাপনে ৫ হাজার ৯২০ জন, সাত জেলায় পাট ফসলের প্রদর্শনী স্থাপনে ৬৫ জন এবং চট্টগ্রামে আখ ফসলের প্রদর্শনী স্থাপনে ৩ জন কৃষককে ১ কোটি ৯০ লাখ ১৬ হাজার ৪৬০ টাকার কৃষি উপকরণ দেয়া হবে বলে জানান কৃষিমন্ত্রী।
প্রণোদনার ফলে ৭৬ হাজার ৭৮৯ মেট্রিক টন আউশ ধান উৎপাদন হবে জানিয়ে মতিয়া চৌধুরী বলেন, যার মূল্য ২৪৫ কোটি ৭২ লাখ ৭১ হাজার টাকা।
অন্যদিকে পাটে প্রণোদনার ফলে ৯৮ দশমিক ১৭ বেল (১ বেল= ৫ মণ) পাট উৎপাদন হবে। ৪০ টাকা কেজি দরে যার মূল্য ৭ লাখ ৮৫ হাজার ৩৬০ টাকা।
“আর কুমড়া জাতীয় সবজি চাষে ফেরোমন ফাঁদ স্থাপনে সহায়তা দেয়ায় ৮ হাজার ৯৬৯ বিঘা জমিতে বিষমুক্ত এসব সবজি উৎপাদন করা যাবে। এর সঙ্গে প্রায় ৫ হাজার ৯২০ জন কৃষক নিরাপদ সবজি উৎপাদনের সাথে পরিচিত হবেন।”
আখের প্রদশর্নী স্থাপন প্রণোদনা দেওয়ায় চট্টগ্রামের কৃষকরা আখের উন্নত জাত সম্পর্কে অবহিত হয়ে তামাক চাষের পরিবর্তে এই ফসলটি উৎপাদনে উৎসাহিত হবেন বলেও আশা করছেন কৃষিমন্ত্রী।
কৃষকদের হাতে থাকা কৃষি কার্ডের মাধ্যমে এসব প্রণোদনা বিতরণ করা হবে জানিয়ে মতিয়া জানান, দুই কোটি কৃষককে সরকার এই কার্ড দিয়েছে, যে কার্ড দেখিয়ে তারা ১০ টাকায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জামানত ছাড়াই ঋণ পান। সাত থেকে ১০ দিন পর থেকেই কার্ডধারী কৃষকদের মধ্যে এসব প্রণোদনা বিতরণ করা হবে বলেও জানান মতিয়া চৌধুরী।
কৃষিসচিব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ ছাড়া কৃষি মন্ত্রণালয় এবং এই মন্ত্রণালয়ের অধীন দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।- বিডিনিউজ