আক্কেলপুরে বাড়ি পেল ৭ টি পরিবার

আপডেট: জুলাই ২২, ২০২২, ১২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

আক্কেলপুর,প্রতিনিধি:


জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার ভূমিহীন ও গৃহহীনদের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে তৃতীয় পর্যায়ে ৭ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পেল জমির দলিলাদিসহ নতুন ঘর।

প্রকল্পের আওতায় সরকারি খাস জমিতে গৃহ নিমার্ণ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্ধোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং এদিনেই সারাদেশে ২৬,২২৯টি অসহায় ভূমিহীন পরিবারের মাঝে স্বপ্নের ঘরের যাবতীয় দলিলাদি হাতে তুলে দেন , একই সাথে প্রধানমন্ত্রী ৫২টি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন বলে ঘোষণা করেন।

প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে একযোগে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পটি উদ্ধোধন করেন পরে উপজেলার ৭ জন উপকারভোগীর মাঝে এসব বাড়ির দলিল হস্তান্তর করেন উপজেলা প্রশাসন।

এ লক্ষে আক্কেলপুর উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম.হাবিবুল হাসানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট উম্মুল বানীন দ্যুতি, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সলাম আকন্দ, পৌর মেয়র মোঃ শহীদুল আলম চৌধুরী, উপজেলা আওমীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ মোকছেদ আলী, পৌরসভার প্যালেন মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেকুর রহমান সাদেক, উপজেলা সহকারী ভূমি মৌসুমী হক, আক্কেলপুর থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ ওসি আবু বকর সিদ্দিকসহ সকল সরকারী কর্মকর্তা, ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ এবং ভূমি ও গৃহহীনরা।

ভূমিহীনরা প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেয়েছেন তাদের চোখে-মুখে খুশির ঝিলিক। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

ভূমিহীন মোছা. লাইলী বেগম স্বামী অনেক আগে মারা গেছে তিন ছেলের মধ্যে দুই ছেলে ভিন্ন হয়ে চলে গেছে । এক ছেলে কে নিয়ে মানুষের বাড়িতে কাজে করে জীবিকা নির্বাহ করতেন এবং মানুষের বাড়ীতে আশ্রিত হয়ে জীবন নির্বাহ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার একটি ঘর পেয়ে বিধবা মোছাঃ লাইলী বেগম তার অনুভূতি জানাতে গিয়ে আবেগে আপ্লত হয়ে পড়েন। স্বপ্নের বাড়ী পেয়ে কান্না জড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, আল্লাহ তুমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দীর্ঘজীবী করো। তার হাত দিয়ে আরো মানুষের সেবা করার সুযোগ করে দাও।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম হাবিবুল হাসান জানান, বিশ্বে গৃহহীন মানুষকে বিনামূল্যে ঘর করে দেওয়ার এটিই সবচেয়ে বড় কর্মসূচি। এর মধ্য দিয়ে পৃথিবীতে নতুন ইতিহাস গড়লেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রত্যেক পরিবারকে ২ শতাংশ খাস জমি বন্দোবস্থ করে ওই জমির ওপর ঘর তৈরি করা হয়েছে। প্রতিটি ঘরের বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১লাক্ষ ৭১ হাজার টাকা এবং এতে রয়েছে ২০ ফুট প্রস্থের ঘর। যাতে রয়েছে দু’টি কক্ষ, একটি রান্নাঘর, টয়লেট ও সামনে খোলা বারান্দাসহ অন্যান্য সুবিধাদি।