আক্কেলপুরে মসজিদের জায়গা দখলকে কেন্দ্র করে মামলা গ্রেফতার আতঙ্কে গ্রামবাসী

আপডেট: মার্চ ২৮, ২০১৭, ১:২১ পূর্বাহ্ণ

আক্কেলপুর প্রতিনিধি



জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়নের কাঁঠালবাড়ি গ্রামে শত বছরের একটি মসজিদ ও মসজিদের জায়গা দখলকে কেন্দ্র করে মামলা দায়েরের ফলে গ্রেফতার আতঙ্কে গ্রামছাড়া হয়েছে নারী-পুরুষ। গতকাল সোমবার বিকেল ৪টায় উপজেলা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে গ্রামবাসীর পক্ষে বীরমুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী লিখিত বক্তব্যে বলেন, ১৯২০ সালে সিএস মালিক মৃত একাব্বর আলী ৫৮৫ দাগে ১৪ শতাংশ জায়গা ও মসজিদ জনসাধারণের জন্য আজীবন ওয়াকফ হিসেবে প্রদান করেন। তখন থেকে ওই মসজিদে এলাকাবাসী নামাজ আদায় করে আসছিলেন। পরবর্তীতে মসজিদটি ভেঙে পড়ায় এবং পুনরায় মসজিদ মেরামতে দেরি হওয়ায় দাতার ওয়ারিশগণ মসজিদের বিপক্ষে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে মসজিদের জায়গা দখলের চেষ্টা করেন। গত ২১ শে মার্চ সকাল ৭টায় গ্রামবাসী মসজিদটি মেরামত করতে গেলে মসজিদের জায়গা জবরদখলকারী শিল্পি বেগম পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বাধা প্রদান করেন। বাধা দিতে ব্যর্থ হলে নিজের কাড়র ছিরে সরযন্ত্রমূলক আক্কেলপুর হাসপাতালে অভিনব কায়দায় নিজেকে আহত দেখিয়ে ভর্তি হয় এবং আক্কেলপুর থানায় নারী নির্যাতন, চুরি ও উক্ত জায়গা নিজ দাবি করে গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। তালিকাভুক্ত ১০ জন এবং অজ্ঞাত আরো ১০ জনকে আসামি করায় গ্রামে গ্রেফতার আতঙ্কে গ্রামবাসী বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।
সম্মেলনে আরো জানানো হয়, মামলার বাদী শিল্পি বেগম একজন প্রভাবশালী নারী। তার স্বামী সাহাদুল ইসলাম একজন পুলিশ সদস্য ও বগুড়া পুলিশ সুপারের গাড়িচালক হওয়ায় আক্কেলপুর থানা কর্তৃপক্ষ প্রভাভিত হয়ে গ্রামবাসীর উপর পুলিশি হয়রানি অব্যাহত রেখেছে। গ্রামবাসীর ব্যবহৃত একটি কালভার্ট বন্ধ করে বাদী শিল্পি বেগমের স্বামী মসজিদের দাবিকৃত ১৪ শতক জায়গার উপরে একটি বহুতলা বাড়ি নির্মাণের প্রস্তিুতি নিয়েছে। গ্রামবাসী মসজিদটি ও মসজিদের ১৪ শতক জায়গা রক্ষার্থে জয়পুরহাট জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন মহলে আবেদন করলে জেলা প্রশাসকের নির্দেশক্রমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফরোজা আখতার বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেছেন। বর্তমানে এলাকায় বিষয়টি নিয়ে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় একটি রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষও ঘটতে পারে বলে সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী উল্লেখ করেন।
এ বিষয়ে আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনচার্জ  (ওসি) সিরাজুল ইসলাম আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে ওই জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি করলে গ্রামবাসী ১৪৪ ধারাকে উপেক্ষা করে মসজিদ মেরামতের কাজ অব্যাহত রাখে। ১৪৪ ধারা ভঙের অপরাধে এলাকার ইউপি সদস্য মাহাবুব ইসলামকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ