আঙুর বাগান নিয়ে জোলির বিরুদ্ধে পিটের মামলা

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২২, ১২:৫৩ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


হলিউডের সাবেক দম্পতি ব্র্যাড পিট ও অ্যাঞ্জেলিনা জোলি যৌথভাবে ফ্রান্সের একটি গ্রামে বিশাল ভূসম্পত্তি কিনেছিলেন। এরমধ্যে আছে নয়নাভিরাম অট্টালিকা এবং ওয়াইন তৈরির আঙুর বাগান।

স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ির পর জোলি নিজের অংশীদারিত্ব বিক্রি করে দিয়েছেন। এ কারণে তার বিরুদ্ধে মামলা ঠুকেছেন পিট।

বৃহস্পতিবার (১৭ ফেব্রæয়ারি) যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে এটি দায়ের করা হয়েছে।
২০০৮ সালে দক্ষিণ-পূর্ব ফ্রান্সের করেনস গ্রামে শাতোঁ মিরাভাল নামের ওই সম্পত্তি কিনে নেন পিট ও জোলি।

এজন্য লেগেছিল প্রায় আড়াই কোটি ইউরো, বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় আড়াইশো কোটি টাকা। এর ছয় বছর পর সেখানেই বিয়ের বন্ধনে জড়ান তারা।

অস্কারজয়ী পিটের দাবি, তিনি ও তার প্রাক্তন স্ত্রী একে অন্যের অনুমতি ছাড়া নিজেদের অংশীদারিত্ব বিক্রি না করার সম্মতি দিয়েছিলেন। কিন্তু পিটের অনুমতি ছাড়াই জোলি কাজটি করেছেন।

আইনজীবীর কথায়, শাতোঁ মিরাভাল এখন ব্র্যাড পিটের আবেগের সঙ্গে জড়িয়ে গেছে। আঙুর বাগানটি এখন দারুণ লাভজনক। তার তত্ত্বাবধানে এখান থেকে কোটি কোটি ডলারের ওয়াইন ব্যবসার গল্প রচিত হয়েছে।

মামলায় উল্লেখ রয়েছে, ২০২১ সালের জানুয়ারিতে শাতোঁ মিরাভালে নিজের অংশীদারিত্ব রুশ ব্যবসায়ী ইউরি শেফিয়ারের মালিকানাধীন লাক্সেমবার্গ ভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রির কথা পিটকে লিখিতভাবে জানিয়ে দেন জোলি।

ব্র্যাড পিট ও অ্যাঞ্জেলিনা জোলির ছয় সন্তানব্র্যাড পিট ও অ্যাঞ্জেলিনা জোলির ছয় সন্তান
পিটের আইনজীবীর মন্তব্য, নিজেকে নিবেদিত করা পিটের ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ এবং তার এই বিনিয়োগকে দুর্বল করতে ইউরি শেফিয়ার ও তার সহযোগীদের লক্ষ্য জেনেশুনেই জোলি নিজের অংশ বিক্রি করেছেন।

ওয়াইন ব্যবসায় নিজের অর্থ ও ঘাম ঢেলে দেওয়া পিটের ক্ষতি করার উদ্দেশেই তিনি এই সম্পত্তি বিক্রির পদক্ষেপ নিয়েছেন।
মামলাটি নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি জোলি।

২০১৪ সালে বিয়ের আগে ১০ বছর প্রেমের সাম্পানে ভেসেছেন ব্র্যাঞ্জেলিনা। ২০১৬ সালে বিয়েবিচ্ছেদের জন্য আদালতের শরণাপন্ন হন জোলি।

২০১৯ সালে তা চূড়ান্ত হয়। এরপর দু’জনের দুটি পথ দু’দিকে গেছে বেঁকে। তারা ছয় সন্তানের বাবা-মা। এর মধ্যে তিন জন দত্তক।
তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন