আজ রোকেয়া দিবস

আপডেট: ডিসেম্বর ৮, ২০১৬, ১১:৫৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



আজ ৯ ডিসেম্বর বেগম রোকেয়া দিবস। বাংলার নারী জাগরণের অগ্রদূত মহিয়সী নারী বেগম রোকেয়ার ১৩৬তম জন্ম ও ৮৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ।
বেগম রোকেয়া ১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর রংপুর জেলার পায়রাবন্দ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। রক্ষণশীল মুসলিম পরিবারে জন্ম নিয়ে তিনি নারী জাগরণের অগ্রদূতের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।
তিনি উনবিংশ শতাব্দীর একজন খ্যাতিমান বাঙালি সাহিত্যিক ও সমাজ সংস্কারক। ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর তিনি কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন।
মৃত্যুর আগে আগেও তিনি ‘নারীর অধিকার’ নামে একটি প্রবন্ধ লিখছিলেন। মহিয়সী এই নারীর মৃত্যুতে কলকাতা সাখাওয়াত মেমোরিয়াল স্কুলে যে সভা হয় তাতে প্রসিদ্ধ কবি ও আরেক নারীজাগরণের কর্মী বেগম সুফিয়া কামাল স্বরচিত একটি কবিতা পাঠ করেছিলেন-যার প্রথম দুই লাইন ছিলো- ‘নয়নে তোমার নামিয়াছে ঘুম,জীবনের দিন শেষে,একি ঘুম মাগো! আর কত! জাগো ডাকি যে আমরা এসে।’
শুধু নারীদের মুক্তির আন্দোলনেই নয়, তিনি সাহিত্যেও সোনা ফলিয়েছেন। তার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য রচনা ঝঁষঃধহধ’ং উৎবধস। যার অনূদিত রূপের নাম ‘সুলতানার স্বপ্ন’ । এটিকে বিশ্বের নারীবাদী সাহিত্যে একটি মাইলফলক ধরা হয়। তার অন্যান্য গ্রন্থগুলি হলো পদ্মরাগ, অবরোধবাসিনী, মতিচুর। তার প্রবন্ধ, গল্প, উপন্যাসের মধ্য দিয়ে তিনি নারীশিক্ষার প্রয়োজনীয়তা আর লিঙ্গসমতার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেছেন। হাস্যরস আর ব্যঙ্গ-বিদ্রুপের সাহায্যে পিতৃতান্ত্রিক সমাজে নারীর অসম অবস্থান ফুটিয়ে তুলেছেন। তার রচনা দিয়ে তিনি সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির চেষ্টা করেছেন, ধর্মের নামে নারীর প্রতি অবিচার রোধ করতে চেয়েছেন, শিক্ষা আর পছন্দানুযায়ী পেশা নির্বাচনের সুযোগ ছাড়া যে নারী মুক্তি আসবে না – তা বলেছেন।
বেগম রোকেয়া জেগেআছেন আমাদের মাঝে।শিক্ষা,সংস্কৃতি,সাহিত্য,সাংবাদিকতা,প্রশাসন-সবকিছুতেই নারীর যে অগ্রযাত্রা তার দিকে তাকালেই আমরা রোকেয়াকে দেখতে পাবো। আজ রোকেয়া দিবসে তাকে জানাই আমাদের শ্রদ্ধার অঞ্জলি।
বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন।