আত্মহত্যার ২২৩ দিন আগে সুইসাইড নোট!

আপডেট: আগস্ট ৯, ২০১৭, ১:০৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


মৃত্যু নিয়ে রহস্যের জাল। আত্মহত্যার ২২৩ দিন আগে সুইসাইড নোট লেখা। তার পরে এতোদিন পরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করলেন তিনি। আবার সেই সুইসাইড নোটে নিজ পরিবারের ভাই ও বোনের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন। আত্মহত্যা হলেও কিন্তু নিহতের মাথায় বা শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
নিহত হলেন, পুঠিয়া উপজেলার পশ্চিম কাঠালবাড়িয়া এলাকার মুক্তিযোদ্ধা মৃত জাহের আলীর প্রতিবন্ধী  ছেলে জিয়ারুল আলী (২৫)।
সুইসাইড নোটটিতে লেখা ছিল, ‘একটি মৃত্যুর বার্তা। আমি নিজ হাতে লিখে যাইতেছি, যে আমার মৃত্যুর পরে, আমার দুই ভাই ও দুই বোন আমার কবরে মাটি দিতে পরেবে না। মো. জিয়া তারিখ ১৯-০১-২০৭।’ (এই লেখাগুলোর অনেক বানান ভুলছিল)
অন্যদিকে তার মৃত্য নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে। নিহত জিয়ার বড় বোন মর্জিনা বেগম অভিযোগ করে বলেন, আমার ভাই জিয়া আলীকে হত্যা করা হয়েছে। কেউ তাকে সুপরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তার লাশ ঘরে ফেলে গেছে।
পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সায়েদুর রহমান ভূইয়া পিপিএম জানান, জিয়ারুল ঘরের মেঝেতে পড়ে ছিলো। মাথার পেছনে বাম কানের উপড়ে আঘাতের চিহ্ন আছে সেখান থেকে রক্তপাত হয়েছে। গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করেছে নাকি দড়ি ছিড়ে পড়ে গিয়ে আঘাত পেয়েছে তা ময়নাতদন্ত হলে জানা যাবে। সুইসাইড নোট ও দুইটি কলম জব্দ করেছে পুলিশ।
উল্লেখ্য, গত সোমবার সন্ধ্যার দিকে পুঠিয়া উপজেলার পশ্চিম কাঠালবাড়িয়া এলাকার নিজ শয়নকক্ষ থেকে  জিয়ার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সুইসাইড নোটও উদ্ধার করা হয়। পরে তার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ