আদমদীঘিতে গাছে পেরেক দিয়ে লাগানো হচ্ছে বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন

আপডেট: মার্চ ৪, ২০২১, ৮:৫১ অপরাহ্ণ

আদমদীঘি(বগুড়া) প্রতিনিধি:


বগুড়ার আদমদীঘিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রচারের জন্য সড়কের পাশে গাছে গাছে পেরেক দিয়ে লাগানো হচ্ছে বিজ্ঞাপন। এতে করে সড়কের গাছগুলোর জীবন নিয়ে শঙ্কা তৈরি হচ্ছে। বিজ্ঞাপনের পেরেকে এরই মধ্যে মরে গেছে অনেক গাছ। ছোট গাছগুলোও রেহাই পাচ্ছে না পেরেকের নিষ্ঠুর আঘাত থেকে। এছাড়া নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। কিন্তু এ বিষয়ে ভ্রক্ষেপ নেয় কর্তৃপক্ষের।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালে দেয়াল লিখন ও পোস্টার লাগানো (নিয়ন্ত্রণ) আইনের ৪ ধারায় রয়েছে নির্ধারিত স্থান ব্যতীত অন্য কোন স্থানে দেয়াল লিখন বা পোস্টার লাগানো যাবে না। কিন্তু কার্যকারিতা না থাকায় আইনটি শুধু কাগজবন্দি হয়েই পড়ে আছে।
সরেজমিন দেখা গেছে, আদমদিঘী উপজেলা ৫০ শয্যা হাসপাতালের সামনে, সান্তাহার পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা, রেলওয়ে স্টেশনের সামনে, সান্তাহার সরকারি কলেজ প্রাঙ্গন, উপজেলা চত্বরের সড়কসহ শহর ও গ্রামের বিভিন্ন হাটবাজারে ছোট বড় গাছে লাগিয়ে দেয়া হয়েছে বিজ্ঞাপন। বড় বড় লোহার পেরেকের সাহায্যে গাছের শরীরে এমনভাবে গেঁথে দেয়া হয়েছে যাতে সহজে কেউ খুলতেও না পারে। বিজ্ঞাপন লাগানো প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন কোচিং সেন্টার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, নানান অখ্যাত অনিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান, চিকিৎসক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিদের ফেস্টুন। কোন নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই যেখানে পারছে পেরেক বা তাঁরকাটার মাধ্যমে গাছে বিজ্ঞাপন লাগিয়ে দিচ্ছে। এ কারনে ইতোমধ্যে প্রাণ হারাতে বসেছে গাছগুলো।
বীর বিক্রম শহিদ লে. আহসানুল হক ডিগ্রী কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. মাসুদ রানা বলেন, আমাদের যেমন অনুভূতি আছে তেমনি গাছেরও অনুভূতি আছে, আঘাতে আমরা যেমন কষ্ট পাই ঠিক গাছ ও কষ্ট পায়। গাছে লোহার পেরেকের কারনে পানি জমে গাছ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এছাড়া পরিবেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে।
এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিমা শারমিন জানান, গাছে পেরেক লাগানো বিষয়ে লোকজনদের সচেতন করা হয় কিন্ত লোকজনতো সচেতন না, এখনো কোন পদক্ষেপ নেয়া হয় নাই। এ বিষয়ে সচেনতা সৃষ্টি করতে হবে।