আদালত অবমাননার পর রাজাকার জাফর ইমামের নাম টেনিস কমপ্লেক্স ভবন থেকে অপসারিত

আপডেট: September 20, 2020, 12:18 am

মুস্তাফিজুর রহমান খান:


রাজাকার, ’৭১ এর খুনী, পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দোসর জাফর ইমামের নাম রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্স এর ললাট থেকে রাতের আঁধারে অপসারিত করেছে কার্যনির্বাহী পরিষদ এর নিয়োজিত কর্মীবাহিনী। এরাই ২০০৪ সালে রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্সে কূখ্যাত জাফর ইমামের নাম জুড়ে দেয়।
রাজাকারের নাম অপসারণের জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের লাগাতার আন্দোলনে ও বিভিন্ন সামাজিক সাংকৃতিক সাংগঠনের অংশ গ্রহণের কারণে কার্যনির্বাহী পরিষদের আনুষ্ঠানিক সভার আগেই রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্স এর ললাট থেকে ‘জাফর ইমাম’ শব্দ দুটি খুঁটরে খুঁটরে অপসারিত করে।
হাইকোর্টের নির্দেশে ফেব্রুয়ারি ২০২০ এর মধ্যেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা থেকে রাজাকারদের নাম অপসারণের কথা ছিল। কিন্তু কার্যনির্বাহী পরিষদ টেনিস কমপ্লেক্স থেকে রাজাকার জাফর ইমামের নাম অপসারণের কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। কার্যত এই কারণে টেনিস কমপ্লেক্স কার্য নির্বাহী পরিষদ আদালত অবমাননা করেছে বলে প্রতীয়মান হয়।
এ অবস্থায় যারা টেনিস কমপ্লেক্সে রাজাকার জাফর ইমামের নাম জুড়ে দিয়েছিল এবং যথাসময়ে সে নাম অপসারণের ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃতভাবে কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার সময় এসেছে।
ইতোপূর্বে ২০১৬ সালের ৬ ডিসেম্বরে সমকাল প্রতিবেদনে প্রকাশ, দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সব স্থাপনা থেকে স্বাধীনতাবিরোধীদের নাম মুছে ফেলতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। নির্দেশনা বাস্তবায়ন করে ৬০ দিনের মধ্যে আদালতে দাখিল করতে শিক্ষাসচিব ও স্থানীয় সচিবকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ মঙ্গলবার দুপুরে এ আদেশ দেন। স্বাধীনতাবিরোধীদের নামে রাস্তাঘাট, সড়ক ও স্থাপনা থেকে মুছে ফেলতে চেয়ে সম্পূরক এক আবেদনের শুনানী নিয়ে আদালত এ আদেশ দেন। আদেশের পর রিটকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার এ কে রাশিদুল হক সাংবাদিকদের বলেন, একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে যেসব যুদ্ধাপরাধীর শাস্তি হয়েছে, তাদের নামেও স্থাপনা রয়েছে। এখন পর্যন্ত সেগুলো অপসারণ করেনি সরকার এবং নাম মুছে ফেলা বা পরিবর্তনের জন্য কোনো উদ্যোগও নেওয়া হয়নি। বাঙালি হিসেবে আমাদের জন্য এটা লজ্জাজনক ও অগ্রহণযোগ্য।
‘‘অদ্য ২৩/০৬/০৪ তারিখে বুধবার বিকাল ৫.৩০ মি: এ রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্সের হলরুমে কমপ্লেক্সের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন কমপ্লেক্সের চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব এ.কিউ.এম. ফজলুল হক।
সভায় সকল সদস্য বিস্তারিত আলোচনা অন্তে নি¤েœ লিখিত আলোচ্যসূচী অনুযায়ী ঐক্যমতের ভিত্তিতে সর্ব সম্মতভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।
(১) আলোচ্য সূচী ঃ
গত ২২/০৫/০৪ তারিখের সভার কার্যবিবরণী পাঠ করা হয় এবং পাঠ অন্তে গৃহীত হলে তা দৃঢ়ীকরণ করা হয়।
(২) আলোচ্য সূচী ঃ
রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্সের নামকরণ পরিবর্তন করে প্রয়াত প্রতিষ্ঠাতা চেয়ামম্যান জাফর ইমাম এর নামে উৎস্বর্গীকরণ ও গঠনতন্ত্রে কমপ্লেক্সের পরিবর্তিত নাম স্থাপন প্রসঙ্গে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে।
রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্সের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম জাফর ইমাম কমপ্লেক্স উন্নয়নে এবং এর প্রতিষ্ঠায় বিভিন্ন মূখী অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ কমপ্লেক্সের সাধারণ সম্পাদক জনাব মোস্তাক আহমেদ সভায় প্রস্তাব করেন যে, রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্সের নাম পরিবর্তন করে “জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্স” নামে অভিহিত করা হলে, শ্রদ্ধেয় চেয়ারম্যান এর আমাদের শ্রদ্ধা অটুট থাকবে এবং তিনি আমাদের মাঝে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। আমার প্রস্তাবটি সভায় বিবেচনার জন্য পেশ করা হলো।
সাধারণ সম্পাদক জনাব মোস্তাক আহমেদ এর বক্তব্য ও প্রস্তাব জনাব আব্দুর রহমান, ট্রেজারার, প্রস্তাবের প্রতি জোর সমর্থন জানিয়ে তিনি আরো প্রস্তাব করেন যে, মরহুম চেয়ারম্যানের নামে কমপ্লেক্সের পরিবর্তিত নাম প্রতিষ্ঠিত করতে হলে গঠনতন্ত্রে এর অন্তর্ভূক্তির প্রয়োজন আছে। সুতরাং গঠনতন্ত্রে জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের নাম অন্তর্ভূক্তি একান্ত প্রয়োজন।
জনাব এস. সি. এম আব্দুল্লাহ প্রস্তাব করেন, কমপ্লেক্সের গঠনতন্ত্রে কিছু বিষয় আছে যা পরিবর্তন ও সংযোজন অনেক পূর্ব হতেই অনুভূত হয়ে আসছে। বিধায় এই সময়ে গঠনতন্ত্রে কমপ্লেক্সের পরিবর্তিত নাম সহ প্রয়োজনীয় ধারা সমূহ সংযোজন পূর্বক আগামীতে সাধারণ সভা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে গ্রহণের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। সভার সকল সদস্য বিস্তারিত আলোচনা অন্তে সর্বসম্মত ভাবে নি¤েœ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
সিদ্ধান্ত ঃ
(১) রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্সের নাম পরিবর্তন করে জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্স নামে অভিহিত করা।
(২) উক্ত নাম গঠনতন্ত্রে অন্তর্ভূক্ত করণ সহ গঠনতন্ত্রের ধারা উপধারা সমূহে সংযোজন, সংশোধন, পরিবর্তন ও পরিবর্ধনের মাধ্যমে একটি সুন্দর গঠনতন্ত্র প্রনয়ণের লক্ষ্যে আগামী সভায় এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য আলোচনা করা হবে।
(৩) আগামী ৩/৪ মাসের মধ্যে সাধারণ সভা আহবানের মাধ্যমে সাধারণ সভায় সংশোধিত গঠনতন্ত্র গ্রহনের সিদ্ধান্ত হয়।
(৩) আলোচ্য সূচী ঃ ২৫/০৬/০৪ তারিখে চেহলাম অনুষ্ঠান সম্পর্কে ঃ
সিদ্ধান্ত ঃ
পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মরহুম চেয়ারম্যান জাফর ইমাম এর বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন ও মাগফেরাত কামনার লক্ষ্যে আগামী ২৫/৬/০৪ তারিখ দিনভর কোরানখানি অনুষ্ঠান, দুপুরে সকল শ্রেণির মানুষের মাঝে খাদ্য পরিবেশন এবং আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
উক্ত দিনটিকে ভাবগম্ভীর পরিবেশে দিনের সকল কার্যসূচী সম্পন্নের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
(৪) বিবিধ :
সভায় পরিলক্ষিত হয় যে, কোন কোন নির্বাহী সদস্য নিয়মিত সভায় যোগদান করেন না। এমতাবস্থায় সভার কার্যপরিচালনায় সমস্যা সৃষ্টি হয় এবং সভার মান হ্রাস পায়। সভা সকল নির্বাহী সদস্যগণের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে যে, আগামী সভা হতে যেন সকল সদস্যই সভায় উপস্থিত থাকতে পারেন সেই ব্যবস্থা গ্রহণে যতœবান হবেন।
উল্লেখ্য যে, পরপর তিনটি সভায় পূর্ব অবগতি ব্যতিরেকে অনুপস্থিত থাকলে নির্বাহী সদস্যপদ গঠনতান্ত্রিক ধারা অনুসারে বাতিল হয়ে যায়।
সভায় আর কোন আলোচ্যসূচী না থাকায় সভার সভাপতি সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপনের মাধ্যমে সভার কাজ সমাপ্ত করেন।’’
লেখক: জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক, অ্যাডভোকেট