আদিবাসী বাকপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে দুইজনের যাবজ্জীবন

আপডেট: মার্চ ২৮, ২০১৭, ১:১২ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস



নাটোরের সিংড়ায় আদিবাসী এক বাক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে দুইজনকে যাবজ্জীবন কারাদ- এবং প্রত্যেককে একলাখ টাকা করে জরিমানা করেছে আদালত। এছাড়া অপর তিনজন আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার দুপুরে নাটোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রেজাউল করিম এই আদেশ দেন।
দ-প্রাপ্তরা হলেন উপজেলার চাতারদিঘী ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামের চান প্রামানিকের ছেলে সুইট প্রামানিক (৩২) এবং আলী মুদ্দিনের ছেলে চান মিয়া ওরফে ফেরদৌস (২৬।
নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর শাহাজাহান কবির জানান, ২০১৫ সালের ২৩ আগষ্ট সিংড়া উপজেলার ছাতারদিঘী ইউনিয়নের হোসেনপুর এলাকায় আদিবাসী এক বাকপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ করে স্থানীয় বেশ কয়েকজন যুবক। পরে এই ঘটনার খবর বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর সিংড়ার কুম্বুবি কালিগঞ্চ ফাড়ির উপপরিদর্শক আবদুল জব্বার বাদী হয়ে ২০১৫ সালের ২৭ আগষ্ট ছয় জনের নামে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে আদালতে পাঁচজনের নামে চার্জশীট দাখিল করে পুলিশ। স্বাক্ষ্যপ্রমাণ এবং দোষীদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির ভিত্তিতে সোমবার দুপুরে আদালত আসামি সুইট প্রামানিক এবং চান মিয়া ওরফে ফেরদৌসকে যাবজ্জীবন কারাদ- প্রদান করেন। এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মামলার অপর তিন আসামিকে খালাস দিয়েছে আদালত।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ