‘আন্দোলনকে দমানোর জন্যই এই নাটক’

আপডেট: জুলাই ১২, ২০১৭, ১:২৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আবারো বয়কটের খড়গ নেমে এলো বাংলা চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে। মিশা সওদাগর, রিয়াজ ও প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরুকে বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চলচ্চিত্র সমিতি। প্রযোজক খসরু তার প্রতিক্রিয়ায় অভিযোগ তুলেছেন, যৌথ প্রযোজনা নিয়ে চলমান আন্দোলনকে দমানোর জন্যই এই নাটক করছে প্রদর্শক সমিতি। চলচ্চিত্র প্রদর্শকসমিতির সভাপতি ও সেন্সর বোর্ডের সদস্য ইফতেখার উদ্দিন নওশাদের উপর হামলার অভিযোগ এনে  প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু, রিয়াজ ও মিশা সওদাগরকে প্রাথমিকভাবে বয়কটের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী ২৬ জুলাই অফিসিয়ালি ঘোষণা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ।
তিনি গ্লিটজকে জানিয়েছেন, “রিয়াজ ও মিশা অভিনীত ও খসরুর প্রযোজনায় কোনো সিনেমা আমরা আর হলে চালাবো না।”
তার উপর হামলার অভিযোগ তুলে নওশাদ জানিয়েছেন, “এর বিরুদ্ধে প্রদর্শকসমিতি যদি অ্যাকশন না নেয় তাহলে ভবিষ্যতে আরো বড় কোনো ঘটনা ঘটাবে তারা।”
প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু এই ঘটনাকে ‘নাটক’ উল্লেখ করে জানিয়েছেন, “এই নাটক তারাই সাজিয়েছে। স্পটে আমরা কিছু করলে তো ফুটেজেই পাওয়া যেত। আমাদের আন্দোলনকে দমানোর জন্যই এই নাটক। যারাই ঘটনাটি ঘটিয়েছে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। আর যদি নওশাদ সাহেবও ঘটান তাহলে তারও বিচার হওয়া উচিত।”
চিত্রনায়ক রিয়াজও অভিযোগ উড়িয়ে জানালেন,“ঘটনার সময় সেন্সরবোর্ডের সামনে তিন স্তরের নিরাপত্তা ছিলো। রমনা থানার ওসি স্পটে ছিলেন। এমন নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে কারা তার গায়ে হাত তুলেছে সেটা তো জানাই যেতো। আর এতো টিভি ক্যামেরা ছিলো, হাতে হাতে মোবাইল ছিলো। ভিডিও হয়েছে। কোথাও কী আমাদের দেখেছেন?”
সঙ্গে আরো যোগ করলেন, “উনি নিজেও তো নিজের পাঞ্জাবী ছিঁড়তে পারেন। ঘটনার সময় শিল্পী সমিতির কাউকে দেখিনি আমি। আর উনি মামলা করতে গিয়েছিলেন রমনা থানায়। দায়িত্বরত ওসিও নিশ্চয় বিষয়টি তদন্ত করে দেখেছেন। সেরকম কোনো তথ্য পেলে আমাদের কানে আসতো।”
বাংলা চলচ্চিত্রের চলমান অস্থিরতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে রিয়াজ বললেন,“আমাদের ছবি পছন্দ না হলে চালাবেন না। কিন্তু দেশিয় চলচ্চিত্রের স্বার্থে লোকাল ছবিগুলো চালান। হলমালিক কিন্তু আমাদের বাইরে না। আপনারা আমাদের পরিবারের সদস্য। আপনারা প্রতারণামূলক ছবি চালাবেন, দেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিকে বিদেশিদের হাতে দিয়ে দেবেন। তখন কিন্তু চুপ করে বসে থাকব না।”
এব্যাপারে মিশা সওদাগরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বললেন,“ওরা যা করার করুক। আমার বলার কিছু নাই। আমি কোনো মন্তব্য করব না।”
উল্লেখ্য, ২১ জুন সেন্সরবার্ডের সামনে হল মালিক নেতা নওশাদের উপর হামলা করে দুর্বৃত্তরা। একই দিন দুপুরে যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্রে অনিয়ম বন্ধে সেন্সরবোর্ড ঘেরাও কর্মসূচি নিয়েছিলো মিশা সওদাগর, রিয়াজ, সাইমন, বদিউল আলম খোকন, তানিন, খোরশেদ আলম খসরুসহ চলচ্চিত্র ঐক্যজোটের নেতারা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ