আপনার পোষ্য গোল্ডফিশটিও ধ্বংস করে ফেলতে পারে বাস্তুতন্ত্র, সতর্ক করছেন বিজ্ঞানীরা

আপডেট: জুলাই ১৪, ২০২১, ২:৪৫ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


অ্যাকোয়ারিয়ামের পোষ্য ছোট্ট গোল্ডফিশ। সারা দিন পাক খেয়ে খেয়ে ঘোরা আর খেতে দিলে গপগপ করে খাওয়া— মোটের উপর এই তার কাজ। সাতেপাঁচে না থাকা এই মাছটি যে কারও ক্ষতি করতে পারে, এমন ভাবনা মনে আসার কোনও কারণ নেই। কিন্তু প্রকৃত ঘটনাটা তাই। পরিস্থিতির বিচারে এই মাছও হয়ে উঠতে পারে ভয়ঙ্কর। পরিবেশের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক।
হালে আমেরিকার বেশ কয়েকটি প্রাকৃতিক সরোবরের বাস্তুতন্ত্র নষ্ট হওয়ার মুখে। আর তার জন্য দায়ী গোল্ডফিশের মালিকেরা। কী ভাবে?
গোল্ডফিশ দ্রুত বড় হয়। অ্যাকোয়ারিয়ামের সীমিত পরিসরে বড় মাপের গোল্ডফিশকে বেশি দিন ধরে রাখা সম্ভব নয়। তাই বহু গোল্ডফিশের মালিকই পোষ্য মাছগুলি বড় হয়ে গেলে, তাদের পুকুর, দীঘি বা সরোবরে ছেড়ে দেন। আর এর ফল ভয়াবহ।
প্রাকৃতিক পরিবেশে এই মাছ দ্রুত বাড়তে থাকে। তাদের চলাফেরার কারণে জলাশয়ের তলদেশের গাছপালা মাটি থেকে উঠে আসে। জল নষ্ট হয়। শুধু তাই নয়, এই জলাশয়ের স্বাভাবিক বাসিন্দা যে মাছ, তাদের খাবারেও টান পড়ে। সব মিলিয়ে বাস্তুতন্ত্র একেবারেই এলোমেলো হয়ে যায়। যা হয়েছে আমেরিকার বেশ কিছু জলাশয়ে।
তাই বর্তমানে জীববিজ্ঞানীদের তরফে অ্যাকোয়ারিয়ামের মালিক এবং মৎস-প্রেমীদের অনুরোধ করা হচ্ছে, তাঁরা যেন নিজেদের পোষ্য মাছেদের প্রাকৃতিক পরিবেশে ছেড়ে না দেন। গোল্ডফিশের মতো মাছ অত্যন্ত দ্রুত বংশবৃদ্ধি করে। ফলে খাবারের অভাবে অন্য মাছেদের জীবন বিপন্ন হয়।
তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ