আবেদন অনুমোদনের আগেই বিদ্যুৎ সংযোগ, চারজনের নামে দুই মামলা

আপডেট: December 4, 2016, 12:23 am

গোদাগাড়ী প্রতিনিধি



রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেয়ার অপরাধে দুই দালালসহ চারজনের নামে দুটি মামলা দায়ের হয়েছে। উপজেলার ঘনশ্যামপুর গ্রামে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য ২৮ গ্রাহক আবেদন করেছিলেন। কিন্তু আবেদন অনুমোদনের আগেই এসব বাড়িতে বিদ্যুতের সংযোগ দিয়েছিল দুই দালাল। এ নিয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হলে গতকাল শনিবার সকালে ওই গ্রামে অভিযান চালায় বিদ্যুৎ বিভাগের ম্যাজিস্ট্রেট নুরুজ্জামান সরকার।
জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওই গ্রামে অভিযান চালানোর সময় আবু সাঈদ ও নজরুল ইসলাম নামে দুই ব্যক্তির বাড়িতে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়া যায়। এসব গ্রাহক বলেছেন, তারা বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য আবেদন করেছেন। কিন্তু তাদের আবেদন এখনও গৃহিত হয়নি। কিন্তু দুই দালাল তাদের বাড়িতে ভুয়া মিটার বসিয়ে সংযোগ দিয়েছিল। এ কারণে আনারুল ও নজরুলের নামে বিদ্যুৎ আইনে দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
তিনি জানান, দুটি মামলাতেই দালাল কামারপাড়া এলাকার রুহুল আমিনের ছেলে বাবু (৩৫) ও রেলবাজার এলাকার আজিজুল হকের ছেলে শহিদুল ইসলামকে (৩৪) আসামি করা হয়েছে। বাড়ির মালিকরা তাকে জানিয়েছেন, এই দুই দালাল তাদের অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছে। এ জন্য তারা ৯ হাজার করে টাকাও নিয়েছে। আসামিদের বিদ্যুৎ আদালতে হাজির হতে সমন জারি করা হয়েছে।
গোদাগাড়ী বিদ্যুৎ অফিসের সহকারী প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ জানান, যেসব বাড়ির মালিকের নামে মামলা করা হয়েছে, তাদের আবেদন অনুমোদনের আগেই বিদ্যুতের সংযোগ লাগিয়ে দিয়েছে শহিদুল ও বাবু। শহিদুল ওই গ্রাহকদের নিজের ভিজিটিং কার্ডও দিয়ে আসে। ম্যাজিস্ট্রেট বাড়িগুলোতে অভিযানে গেলে তারা শহিদুলের ভিজিটিং কার্ড বের করে দেখান। তারা বলেন, এই শহিদুল তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে আগাম সংযোগ দিয়েছে। এ কারণে দুটি মামলাতেই তাকে আসামি করা হয়েছে।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গত কোরবানি ঈদের আগে পাহাড়পুর নামাজগ্রাম, ঘনশ্যামপুর ও বামনডাঙা গ্রামের ২৮ জন ব্যক্তি দালাল শহিদুল ও বাবুর মাধ্যমে নতুন সংযোগের জন্য আবেদন করেছিলেন। আবেদনের পর অনুমোদনের আগেই গত বিদ্যুৎ অফিসের কয়েকজন কর্মচারির সহযোগিতায় চার মাস আগে তাদের সংযোগ দিয়ে আসে দুই দালাল। এ নিয়ে বিদ্যুৎ অফিসের অন্যান্য কর্মচারিদের মধ্যে হৈচৈ শুরু হলে গত ২০ নভেম্বর বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তারা সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে আসেন।
কিন্তু ওই দিন বিকেলেই এই দুই দালাল তাদের আবার সংযোগ দিয়ে আসে। পরে গত শুক্রবার এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর ওই দিনই এই দুই দালাল ফের গ্রাহকদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে যান। কিন্তু গ্রাহকরা তাদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে দেননি। এ খবরটিও গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এরপর ওই দিনই গ্রামগুলোতে অভিযান চালান বিদ্যুৎ বিভাগের ম্যাজিস্ট্রেট।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ