আমদানি করা চাল বস্তায় বিক্রি করতে হবে

আপডেট: জুলাই ২, ২০২২, ৭:৩১ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


আমদানি করা চাল প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে বিক্রি করতে হবে। নতুন করে প্যাকেটজাত করা যাবে না বলে শর্ত দিয়েছে সরকার।
খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, আমদানি শুল্ক তুলে নেওয়ার পর প্রথম দফায় বেসরকারিভাবে ৪ লাখ ৯ হাজার টন আমদানির জন্য আবেদনকারী ৯৫টি প্রতিষ্ঠানকে অনুমতি দিচ্ছে সরকার। আমদানিকারকদের আগামী ১১ আগস্টের মধ্যে পুরো চাল বাংলাদেশের বাজারে আনতে হবে। আমদানি করা চালের পরিমাণ গুদামজাত ও বাজারজাত করার তথ্য সংশ্লিষ্ট জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককেও জানাতে হবে।

সূত্র জানিয়েছে, আগামী ৩০ জুনের মধ্যে এসব প্রতিষ্ঠানকে চাল আনার আমদানির অনুমতি দিতে অনুরোধ জানিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। শর্ত হিসেবে চিঠিতে বলা হয়েছে, বরাদ্দ পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে আগামী ২১ জুলাইয়ের মধ্যে এলসি খুলতে হবে এবং এ সংক্রান্ত তথ্য খাদ্য মন্ত্রণালয়কে ই-মেইলে তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে হবে।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া শর্তে বলা হয়েছে, আমদানিকারকদের আগামী ১১ আগস্টের মধ্যে সম্পূর্ণ চাল বাংলাদেশের বাজারে আনতে হবে। আমদানি করা চালের পরিমাণ গুদামজাত ও বাজারজাত করার তথ্য সংশ্লিষ্ট জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককেও জানাতে হবে।

সম্প্রতি বোরো ধান ওঠার পরও চালের দাম বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষিতে এবার আমদানি বাড়িয়ে দাম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে সরকার। এর অংশ হিসেবে আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়েছে।
চলতি বছরের ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত শুল্কহার কমানোর এই আদেশ বহাল থাকবে বলে জানিয়েছে এনবিআর।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন