আরব দেশে বৃহত্তম হিন্দু মন্দির, সম্প্রীতির বার্তায় দুয়ার খুলল দশেরায়

আপডেট: অক্টোবর ৫, ২০২২, ১০:১৯ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


মধ্যপ্রাচ্যে বৃহত্তম হিন্দু মন্দিরের উদ্বোধন হল দশেরায়। ভারতীয় ও আরবি শৈলিতে তৈরি মন্দিরটি বুর্জ খলিফার দেশে নয়া আকর্ষণ হতে চলেছে। আরব আমিরশাহীতে বসবাসকারী হিন্দুদের বক্তব্য, এই মন্দিরের মাধ্যমে শান্তি ও সম্প্রীতির বার্তা দিতে চান তাঁরা। একই কথা বলেছেন সংযুক্ত আরব আমিরশাহির সহিষ্ণুতা বিষয়ক মন্ত্রকের মন্ত্রী। বুধবার দশেরার দিনে মন্দিরের দরজা দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে।

দুবাইয়ের জেবেল আলি গ্রামে রয়েছে মন্দিরটি। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের দাবি, মন্দিরটি সিন্ধু গুরু দরবার মন্দিরেরই সম্প্রসারণ। আরব আমিরশাহীর প্রাচীনতম হিন্দু মন্দিরগুলির অন্যতম। মন্দিরটিতে ১৬ জন দেবতার মূর্তি রয়েছে। ২০২০-র মে মাসে মন্দিরের ভিত্তি স্থাপন হয়েছিল। এই মন্দির উদ্বোধনের ফলে এলাকায় হিন্দুদের দীর্ঘদিনের উপাসনালয়ের অভাব পূরণ হল। ৭০ হাজার বর্গফুটের মন্দিরে সকল ধর্মের মানুষকে স্বাগত জানানো হয়েছে। মঙ্গলবার মন্দিরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে বিভিন্ন ধর্মের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

মধ্যপ্রাচ্যের বৃহত্তম মন্দিরে একসঙ্গে ১ হাজার ২০০ জন ভক্ত মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবেন, জানাচ্ছে মন্দির কর্তৃপক্ষ। প্রার্থনা কক্ষে বেশিরভাগ দেবদেবীর মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। একই সঙ্গে মন্দিরের ছাদে তৈরি করা হয়েছে গোলাপি রঙের থ্রিডি পদ্ম। মন্দিরের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট জানানো হয়েছে, দুবাইয়ের নতুন হিন্দু মন্দির স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৬টা থেকে থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

মঙ্গলবারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন সংযুক্ত আরব আমিরশাহির সহিষ্ণুতা বিষয়ক মন্ত্রকের মন্ত্রী শেখ নাহিয়ান বিন মুবারক আল নাহিয়ান এবং দুবাইয়ে স্থিত ভারতের রাষ্ট্রদূত সঞ্জয় সুধী। মন্দিরটিকে সহিষ্ণুতা ও সম্প্রীতির প্রতীক হিসেবে বর্ণনা করেছেন সঞ্জয় সুধীর। মন্দির নির্মাণে দুবাই প্রশাসন সহযোগিতা করেছে, তার জন্য ভারতীয়দের তরফে ধন্যবাদ জানান তিনি। উল্লেখ্য, এই এলাকাকে ‘অর্চনা গ্রাম’ বলে অভিহিত করেছে সংযুক্ত আরব আমিরশাহি সরকার। এখানে রয়েছে সাতটি চার্চ, একটি জৈন মন্দির ও একটি শিখ গুরুদ্বার। এবার তৈরি হল হিন্দু মন্দির। সম্পূর্ণ তীর্থস্থল হয়ে উঠল দুবাইয়ের জেবেল আলি।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ