আর কত, নতুন নেতৃত্ব পেলে খুশি হই: হাসিনা

আপডেট: অক্টোবর ১৫, ২০১৬, ১১:৪৭ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
তিন যুগ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর কাউন্সিলের আগে আবারও নতুন নেতা নির্বাচনের তাগিদ দিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।
শনিবার আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির শুরুতেই প্রারম্ভিক বক্তব্যে ৭০ বছর বয়সী শেখ হাসিনা বলেন, “৮১ থেকে ২০১৬; ৩৫ বছর। আর, কত? নতুন নেতা নির্বাচন করেন।” এর আগে গত ২ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলনেও শেখ হাসিনা বলেছিলেন, “আমার তো ৩৫ বছর হয়ে গেছে। আমাকে যদি রিটায়ার করার সুযোগ দেয়, তাহলে আমি সব থেকে বেশি খুশি হব।”
সেদিন সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা, মন্ত্রিসভার সদস্য এবং সহযোগী সংগঠনের নেতারা সমস্বরে ‘না না’ বলে ওঠেছিলেন।
তার পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গবন্ধুকন্যা তখন বলেন, “আমি থাকব। দল ছেড়ে তো আমি যাচ্ছি না। যদি নতুন নেতা নির্বাচিত করা হয়, তাহলে সব থেকে বেশি আনন্দিত হব।”
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হওয়ার পর ১৯৮১ সালের ফেব্রুয়ারিতে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতেই আওয়ামী লীগের ত্রয়োদশ সম্মেলনে তাকে দলীয় প্রধান নির্বাচিত করা হয়।
ওই বছরের ১৭ মে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নেন হাসিনা। তারপর তিনি ১৯৯১ সালে ভোটে হারের পর সভানেত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেয়ার ঘোষণা দিলেও নেতা-কর্মীদের চাপে পদে থেকে যান।
তার নেতৃত্বে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফেরার পর এখন তৃতীয় মেয়াদে সরকার প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।
১৯৮১ সালের পর ১৯৮৭, ১৯৯২, ১৯৯৭, ২০০২, ২০০৯ এবং ২০১২ সালের সম্মেলনে শেখ হাসিনা বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নির্বাচিত হন।
আগামী ২২ ও ২৩ অক্টোবর আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতদিন সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু পরিবারের মধ্য থেকে শুধু শেখ হাসিনা কাউন্সিলর থাকলেও এবার ভিন্ন চিত্র দেখা যাচ্ছে।
বোন শেখ রেহানার পাশাপাশি ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়, মেয়ে সায়মা হোসেন পুতুল, ভাগ্নে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববিও এবার কাউন্সিলে যাচ্ছেন।
কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতে আগামী নেতৃত্ব গঠন হবে বলে শেখ হাসিনা এক সভায় জানিয়েছিলেন।
গণভবনে দলের জাতীয় কমিটির বৈঠকে শেখ হাসিনা অবসর চাওয়ার পর ব্ক্তব্যের একেবারে শেষের দিকে আরও বলেন, “বঙ্গবন্ধু চারা রোপণ করেছিলেন। সেটা মহীরুহ হয়েছে। আপনারা আবার নতুন চারা রোপণ করেন।”
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্েয অবসর চাওয়ার পর আওয়ামী লীগের সভাপতিম-রীর সদস্য মো. নাসিম বলেছিলেন, “শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ তিন বার ক্ষমতায় এসেছে। বাংলাদেশ বিশ্ববাসীর চোখে একটি রোল মডেল হিসেবে অবস্থান করছে। সুতরাং তিনিই নেতা। তিনি পুনরায় দলের সভাপতি হবেন। তার বিকল্প নেই।”
আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য এবং সভাপতি মনোনীত ২১ জন সদস্য এবং প্রত্যেক সাংগঠনিক জেলা থেকে মনোনীত বা নির্বাচিত একজন করে সদস্য নিয়ে আওয়ামী লীগ জাতীয় কমিটি গঠিত হবে। জাতীয় কমিটির মোট সদস্য সংখ্যা ১৬৬ জন।- বিডিনিউজ