আ’লীগের মনোনীত প্রার্থীদের বিপক্ষে লড়বেন একই দলের ৩ এমপিসহ ১৫ নেতাকর্মী

আপডেট: ডিসেম্বর ১, ২০২৩, ১১:০৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহীর ৬টি আসনে নির্বাচন করার জন্য মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের ২১জন নেতাকর্মী। এর মধ্যে ছয়জন আছেন আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী। বাকি ১৫ জন মনোনিত প্রার্থীর বিপক্ষে ভোটযুদ্ধ করতে চাচ্ছেন। এর মধ্যে তিন এমপিও মনোনিত প্রার্থীদের বিপক্ষে ভোট করবেন। তারা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কা নিয়ে জয়ী হয়েছিলেন। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে লড়তে চাচ্ছেন।

তিন এমপি হলেন, রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের এমপি আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের এমপি এনামুল হক এবং রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের এমপি ডা. মনসুর রহমান। প্রথমে এমপি আয়েন উদ্দিন ও ডা. মনসুর রহমান নির্বাচন করবেন না বলে জানালেও তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন। মনোনয়ন না পাওয়ার পরপরই তারা নির্বাচনের ঘোষণা দেন।

রাজশাহী-৩ আসনে নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ। এখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান এমপি আয়েন উদ্দিন। তিনি ২০১৪ সাল থেকে এ আসনের এমপি। এছাড়াও আওয়ামী লীগের কর্মী নিপু হোসেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে এমপি আয়েন উদ্দিন বলেন, পবা-মোহনপুরের বাইরের লোক এসে এলাকাকে অশান্ত করতে চায়। এই এলাকায় শান্তি ও উন্নয়ন হয়েছে অনেক। কেউ এসে তা নষ্ট করুক আমি চাই না। তাই তিনি প্রার্থী হয়েছেন।

রাজশাহী-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন তাহেরপুর পৌরসভার সদ্য সাবেক মেয়র আবুল কালাম আজাদ। এখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বর্তমান এমপি এনামুল হক। এনামুল ২০০৮ সাল থেকেই এ আসনের এমপি। এনামুল ছাড়াও বাবুল হোসেন নামের দলের আরেকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

রাজশাহী-৫ আসনে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াদুদ দারা। তার বিপক্ষে নির্বাচন করতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বর্তমান এমপি ডা. মনসুর রহমান। দারা ২০০৮ ও ২০১৪ সালে এ আসনের এমপি হয়েছিলেন। ২০১৮ সালে তিনি ছিটকে পড়লে মনোনয়ন পান মনসুর রহমান। এবার মনসুর বাদ পড়েছেন। মনোনয়ন পেয়েছেন দারা।

তবে দারাকে ভোটের মাঠে ছাড় দিতে নারাজ বর্তমান এমপি। তিনি বলেন, নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করতে সবার অংশগ্রহণের সুযোগ আছে। আমি সারাজীবন পুঠিয়া-দুর্গাপুরের মানুষের সেবা করতে চাই। তাই প্রার্থী হয়েছি।

রাজশাহী-৫ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আহসানুল হক মাসুদ ও জেলা যুবলীগের সাবেক সহসভাপতি ওবাইদুর রহমান স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। রাজশাহীর অন্য আসনগুলোতেও আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীর ছড়াছড়ি।

রাজশাহী-১ আসনে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী। এখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মো. আখতারুজ্জামান, গোলাম রাব্বানী, শাহনেওয়াজ আয়েশা আখতার জাহান ও শারমিন আক্তার নিপা। নিপা হলেন ঢাকাই সিনেমার চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি।

রাজশাহী-২ আসনে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল। এখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শফিকুর রহমান বাদশা, দলের কর্মী রেজাউন নবী আল মামুন ও অ্যাড. আবু রায়হান মাসুদ।

রাজশাহী-৬ আসনে এবারও মনোনয়ন পেয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তার বিপক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা রায়হানুল হক ও দলের কর্মী ইসরাফিল বিশ্বাস।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, রাজশাহীর ছয়টি সংসদীয় আসনে দলীয় ও স্বতন্ত্র মিলে মোট ৬০ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। আগামী ১৪ ডিসেম্বর প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হবে। বৈধ প্রার্থীরা ১৭ ডিসেম্বরের মধ্যে তাঁদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে পারবেন। প্রতীক বরাদ্দ হবে ১৮ ডিসেম্বর।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ