আশ্রয় পেল রাবি স্টেশনে জন্ম নেয়া ‘স্বপ্ন’

আপডেট: অক্টোবর ১০, ২০১৬, ১১:৫১ অপরাহ্ণ

RU-Photo
রাবি প্রতিবেদক
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় রেল স্টেশনে জন্ম নেয়া ‘স্বপ্ন’ এবং তার বাকপ্রতিবন্ধী মাকে রাজশাহীর মাদার তেরেসা আশ্রমে হস্তান্তর করা হয়েছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর এ বিষয়ে জানতে পেরে উদ্ধারকারীদের সাথে যোগাযোগ করেন আশ্রমের সদস্যরা। গতকাল সোমবার বিকেলে স্বপ্ন এবং তার মাকে আশ্রমে হস্তান্তর করা হয়।
শুক্রবার রাতে স্বপ্ন এবং তার মাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়াদের একজন জিয়াউর রহমান বলেন, ‘শনিবার হাসপাতাল থেকে রিলিজ পাবার পর বিশ্ববিদ্যালয় রেলস্টেশনের একটি পরিত্যক্ত কক্ষেই ছিলেন স্বপ্ন এবং তার মা। সেখানে যথাযথ সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছিলো না। সার্বক্ষণিক সেবা দেবার মতো কোন নারীকেও পাওয়া যাচ্ছিলো না। তাই আশ্রমের সদস্যরা যখন যোগাযোগ করেন তখন তাদেরকে হস্তান্তর করার সিদ্ধান্ত নেয়া।
এদিকে স্বপ্নের মায়ের একটি ব্যাগ থেকে তার জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে। সেখানে তার নাম উল্লেখ আছে ফ্রিংগি খাতুন। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানান ইসলামপুর ইয়নিয়নের লক্ষ্মীনারায়ণপুর গ্রামের শফিকুল ইসলামে মেয়ে।
উদ্ধারকারী দলের আরেক সদস্য নাজমুস সাকিব বলেন, ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জের এই এলাকায় যদি কোন ব্যক্তি ফ্রিংগি খাতুনকে চিনেন বা তার আত্মীয়স্বজনকে চিনেন তাহলে তারা আমাদের সাথে অথবা মাদার তেরেসা আশ্রমে যোগাযোগ করতে পারেন। স্বপ্ন এবং তার মা যেন যথাযথ সেবা পায় সেটাই এখন কাম্য।
রোববার ফ্রিংগি খাতুনের সাথে ইশারায় কথা বলে জানা যায়, তার স্বামী কিছুদিন আগে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। তারপর থেকেই তিনি বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা বা খাবার সংগ্রহ করে দিনাতিপাত করতেন।
মাদার তেরেসা আশ্রমের ইন-চার্জ সিস্টার মেরি বন্দিতা বলেন, ‘ওই শিশু মায়ের খবর জানতে পেরে আমরা উদ্ধারকারী দলের সাথে যোগাযোগ করি। মূলত অসহায় মানুষদের জন্যই এই আশ্রমটি করা হয়েছে এবং আমরাও চেষ্টা করি তাদেরকে যথাযথ সেবা প্রদান করার।’
তিনি আরো বলেন, ‘স্বপ্ন এবং তার মাকে যথাযথ সেবাই দেয়া হবে। তবে যদি তাদের প্রকৃত আত্মীয় স্বজন আমাদের সাথে যোগাযোগ করেন তবে উদ্ধারকারী দলের সাথে কথা বলে তারপর তাদেরকে হস্তান্তর করা হবে। তার আগ পর্যন্ত তারা আমাদের আশ্রয়েই থাকবেন।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ