আসন্ন কানসাট ইউপি নির্বাচনে জমে উঠেছে প্রচার-প্রচারণা আ’লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা

আপডেট: জুন ১২, ২০২২, ৭:১৭ পূর্বাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি:


আসন্ন ১৫জুন (বুধবার) শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট ইউপি নির্বাচন। এ নির্বাচনকে ঘিরে চলছে প্রচার-প্রচারণা। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ভোট প্রার্থনা করছেন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দুই জন প্রার্থী হওয়ায় চলছে রেষারেষি।

তবে এবার নির্বাচনে দুজনের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে এলাকার ভোটারদের অভিমত। কারণ এবার নির্বাচনে বিএনপির কোন প্রার্থী নেই। তবে জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেন সেফাউল মুলক মোটরসাইকেল প্রতিকে ও আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থী দুইবারের সফল চেয়ারম্যান নৌকা প্রতিকে নির্বাচন করছেন।

সরেজমিনে জানা যায়, সাধারণ ভোটরদের সাথে কথা বলে যে চিত্র পাওয়া গেছে, তাতে অল্প ভোটের ব্যবধানে পাস ফেল হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে জামায়াত বিএনপির অনেক ভোটারই বর্তমানে প্রেক্ষাপটে দলের চেযে উন্নয়নের প্রতি অধিক গুরুত্ব দিয়ে ব্যক্তিগতভাবে বেনাউল ইসলামকে ভোট দিবে বলে মন্তব্য করছেন।

যদিও যারা কট্টর জামায়াত বিএনপি তারা এটি মানতে রাজী নয়। তবে কট্টরপন্থী বিএনপি ও জামায়াত সমর্থকরা নির্বাচনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্নও তুলছেন। কানসাট ইউনিয়রে ৪, ৫, ৬, ৭,৮ ও ৯ নং ওযার্ড ঘুরে কট্টরপন্থী বিএনপি ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, যদিও দলীয় প্রার্থী নেই তবুও এ অঞ্চলগুলি এক সময় বিএনপির ঘাঁটি ছিল, বর্তমান জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে সেটা ধরে রাখার চেষ্টা করছি এবং আমরা সফল হবো।

তবে সাধারণ ভোটের অভিমত হলো যেহেতু বেনাউল ইসলাম দুবার নির্বাচিত হয়ে দলবল নির্বিশেষে এলাকার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, গোরস্থান, মন্দির,রাস্তাঘাট,ব্রীজ, সুবিধাভোগীদের বিভিন্ন ধরনের কার্ডের ব্যবস্থা, কানসাট বাজারের ব্যাপক উন্নয়ন, রাস্তার যানজট কমানো, মাদক প্রতিরোধ, চুরি-ছিনতাই রোধ, মানুষের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রভৃতি ক্ষেত্রে সহস্রাধিক কোটি টাকার কাজের মাধ্যমে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন।

সেহেতু তাকে আবারো নির্বাচিত করে এলকার উন্নয়নের পথকে সুগম করতে চাই। অন্যদিকে জামায়াত সমর্থিত ভোটারদের অভিমত হলো জামায়াত বহু বছর থেকে সবক্ষেত্রেই বিএনপিকেই সমর্থন দিয়ে আসছে এবং এবার কানসাট ইউপি নির্বাচনে বিএনপির কোন প্রার্থী না তারা সবাই মোটর সাইকেল প্রতীকে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী সেফাউল মুলককে ভোট দিবে এবং বিপুল ভোটের ব্যবধান বিজয় লাভ করবো।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জাানান, আওয়ামীলীগের মধ্যে লবিং গ্রুপিং থাকায় এ নির্বাচনে খুব জোরে হোঁচট খেতে যাচ্ছে তারা আরো বলেন দলে লবিং গ্রুপিং থাকায় এখনো দলের অনেক নেতাকর্মী নির্বাচনে মাঠে নামেননি।

এ ব্যাপারে জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী সেফাউল মুলক বলেন, গত ইউপি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী থাকার পর আমি মাত্র ৪৬৪ ভোটের ব্যবধানে আমি পরাজিত হয়েছিলাম, বিজয়ী প্রার্থী বেনাউল ইসলামত পেয়েছিলেন ১০৬০২ ভোট, আমি পেয়েছিলাম ১০১৩৮ ভোট এবং বিএনরি প্রার্থী পেয়েছিলেন ৩৫৮৩ ভোট।

এবার বিএনপির কোন প্রার্থী নেই। যেহেতু আমরা প্রায় প্রতিটি নির্বাচনে দেশব্যাাপী বিএনপির সাথে ঐক্যমত থেকে নির্বাচন করে আসছি। তারাই ধারাবাহিকতায় কানসাট ইউপি নির্বাচনেও বিএনপি দলের সকল নেতাকর্মী আমাকে সমর্থন দিয়েছে এবং ভোটও দিবেন সেহেতু আমি বিজয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।

তবে আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থীর কর্মীরা বিভিন্ন ভাবে আমার কর্মীদের হুমকি-ধামকি দি”্ছে এবং তারা বাড়ির পার্শে ও মোহনবাগ কেন্দ্রে দখলের জন্য আগে থেকে পায়তারা শুরু করেছে। এক্ষেত্রে আমি প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করে আবেদন করেছি এবং আমরাও সচেতন আছি।

অন্যদিকে আওয়ামীলীগ দলীয় নৌকার প্রার্থী বেনাউল ইসলাম তাদের সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তারাই আমাকে ও আমার কর্মীদের বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি দিচ্ছে এবং ২০১৩-১৪ সালের মত নাশকতা সৃষ্টির মাধ্যমে নির্বাচনী মাঠ থেকে তাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামীলীগের মধ্যে কোন লবিং গ্রুপিং নেই, সকল নেতাকর্মী মাঠে কাজ করছে। গত ৫বছর ধরে কানসাট ইউনিয়নে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রায় ১১শ কোটি টাকা ব্যয়ে ব্যাপক উন্নয়ন হওয়ায় বিএনপির সমর্থকরা আমাকে ভোট দিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার সুযোগ দিবেন।

নিরাপত্তার ক্ষেত্রে উপজেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা তাসিনুর রহমান জানান, ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসক, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ প্রশাসনিক কর্মকর্তাগণ কেন্দ্রগুলি পরিদর্শন করেছেন এবং নিরপত্তার ক্ষেত্রে বিভিন্ন বাহিনী মোতায়েন থাকবে এবং কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা ঘটার সম্ভাবনা নেই।

উল্লেখ্য, আগামী ১৫ জুন কানসাট ইউপি নির্বাচনে ৯টি ওযার্ডে ১০টি ভোট কেন্দ্রে ১০৭ ভোট কক্ষে ১৬হাজার পুরুষ ভোটার ও ১৫৪২৭জন মহিলা ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ