আড়ানী পৌরসভায় উপনির্বাচন পোস্টারে ছেয়ে গেছে অলিগলি

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৭, ১:০৮ পূর্বাহ্ণ

আমানুল হক আমান, বাঘা


ওয়ার্ডের অলিগলি ছেয়ে গেছে প্রার্থীদের পোস্টারে। বেলা দুইটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত চলছে বিরামহীন মাইকিং। সমানে চলছে প্রার্থীদের গণসংযোগ। আড়ানী পৌরসভার সংরক্ষিত এক নম্বর ওয়ার্ডে উপনির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দের পর প্রচারণায় সরগরম হয়ে উঠেছে। চায়ের কাপে ঝড় তুলছেন ভোটাররা। করছেন নানা হিসাব-নিকাশ। আগামী ৬ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে এ উপনির্বাচন।
প্রতীক বরাদ্দের পরপরই নির্বাচনের প্রার্থীরা মাঠে নেমে পড়েছেন। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড সদস্য প্রার্থীরা বিরামহীনভাবে চালাচ্ছে গণসংযোগ। ভোটাররাও উপভোগ করছেন নির্বাচনী আমেজ। এবারের নির্বাচনে উন্নয়নের চেয়ে স্থিতিশীল পরিবেশ। সরেজমিনে ভোটার ও প্রার্থীদের সঙ্গে কথা বলে এ চিত্র পাওয়া গেছে।
ভোটাররা বলেন, নির্বাচনে এমন প্রার্থীকে ভোট দেব, যিনি এলাকার স্থিতিশীল পরিবেশ রক্ষায় ভূমিকা রাখতে পারবেন। ভোটাররা শান্তিতে ঘরে বসবাস করার নিশ্চয়তা চায়। প্রার্থীরা নির্বাচনের আগে যে প্রতিশ্রুতি দেন, নির্বাচনের পর সেই প্রতিশ্রুতি ভুলে যান। যারা এই সহযোগিতা করবেন তাদের চিহিৃত করে ভোট দিব।
উপজেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, আড়ানী পৌরসভার উপনির্বাচনে সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চার জন। প্রার্থীরা হলেন, সুলতানা রাজিয়া মলি (মৌমাছি), ছনিয়া বেগম (আঙ্গুর ফল), রোকিয়া বেগম (কেচি), আক্তার জাহান (ভেনিটি ব্যাগ)।
আড়ানী পৌরসভার দ্বিতীয়বার ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে এক নন্বর ওয়ার্ড সংরক্ষিত আসনে বিজয়ী হন ইলোরা নাজ কেমি। তিনি ২০১৬ সালের ৩০ অক্টোবর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর মৃত্যুর দুই মাস পর এই সংরক্ষিত ওয়ার্ডে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কর্মকর্তা।
আড়ানী পৌরসভার কুশবাড়িয়া, গোচর, হামিদকুড়া মহল্লা নিয়ে এক নম্বর সংরক্ষিত ওয়ার্ড। এই ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৩৩০। এর মধ্যে কুশাবাড়িয়া মহল্লায় ভোটার সংখ্যা এক হাজার ১৪২, গোচর মহল্লায় এক হাজার ৪০, হামিদকুড়া মহল্লায় ৮৪৮।