ইংলাকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা, দেশ ছাড়ার খবর

আপডেট: আগস্ট ২৬, ২০১৭, ১:২৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


থাইল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইংলাক সিনাওয়াত্রা দেশ ছেড়েছেন বলে দাবি করেছেন সিনাওয়াত্রা পরিবারের ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তি।
ইংলাকের দল পুয়ে থাই পার্টির সদস্য ওই ব্যক্তির বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য দিয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ব্যক্তি বলেন, “তিনি (ইংলাক) নিশ্চিতভাবেই দেশ ছেড়েছেন।”
থাইল্যান্ডের ক্ষমতাসীন সরকারের পক্ষ থেকেও ইংলাকের দেশ ছাড়ার আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।
উপ প্রধানমন্ত্রী প্রুইত ওয়াংসুওয়ান সাংবাদিকদের বলেন, “এরই মধ্যে সম্ভবত তিনি দেশত্যাগ করেছেন।”
দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে একটি মামলায় শুক্রবার আদালতে হাজির না হওয়ায় ইংলাকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট।
শুক্রবার ওই মামলার রায় দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু ইংলাক এদিন আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় ২৭ সেপ্টেম্বর রায়ের পরবর্তী তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে।
ইংলাকের আইনজীবী বলেন, “তিনি অসুস্থ, তার কানে সমস্যা হয়েছে। এ কারণে আমার মক্কেল আদালতে উপস্থিত হতে পারেনি।” যদিও ইংলাকের আইনজীবীরা আদালতে এ সংক্রান্ত কোনো চিকিৎসা সনদ দেখাতে পারেননি।
বিবিসি জানায়, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা ইংলাকের অসুস্থতার বিষয়টি আমলে নেননি এবং দেশ ছাড়তে পরেন এই আশঙ্কায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জরি করে রায়ের পরবর্তী তারিখ ঘোষণা করেন।
সুপ্রিম কোর্টের একজন বিচারকের পক্ষ থেকে ওেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, “আমাদের মনে হয় না বিবাদী অসুস্থ। খুব সম্ভবত বিবাদী আত্মগোপন করেছেন অথবা পালিয়ে গেছেন। আমরা ২৭ সেপ্টেম্বর রায়ের তারিখ নির্ধারণ করছি।”
এ মামলায় দোষীসাব্যস্ত হলে কারাদ-ের পাশপাশি রাজনীতিতে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ হতে পারেন ইংলাক। যদিও মামলার শুরু থেকেই ইংলাক গাফিলতির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, তিনি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন।
২০১১ সালে থাইল্যান্ডের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী হন ইংলাক।
চালে ভর্তুকি প্রকল্পে লাখ লাখ ডলার অনিয়মের অভিযোগ উঠার পর ২০১৫ সালে সেনা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে তাকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়।
ইংলাকের বিরুদ্ধে অভিযোগ, নিজের সমর্থক কৃষকদের খুশি করতে চাল ক্রয় প্রকল্পে আন্তর্জাতিক বাজার দরের চেয়ে বেশি মূল্যে চাল কিনেছিল ইংলাক সরকার। এতে সরকারি গুদামে চাল উপচে পড়ে, কিন্তু বেশি দামে কেনায় আন্তর্জাতিক বাজারে সেই চাল রপ্তানি করা যায়নি।
ক্ষমতাচ্যুত হলেও এখনও দারুণ জনপ্রিয় ইংলাকের রায়ের দিন কড়া নিরাপত্তার মধ্যেও তার শত শত সমর্থক সুপ্রিম কোর্টের সামনে জড় হয়।
তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ