ইউপি ভোটের বিরোধ নিষ্পত্তিতে ট্রাইব্যুনাল গঠন

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২২, ২:৪৩ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


ষষ্ঠ ধাপে ২২০টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) ভোটের নির্বাচনি বিরোধ সংক্রান্ত শুনানি ও নিষ্পত্তিতে ‘ট্রাইব্যুনাল ও আপিল ট্রাইব্যুনাল’ গঠন করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

ইউপি ভোটের চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত সদস্য ও সাধারণ সদস্য পদের নির্বাচনী বিরোধ সংক্রান্ত দরখাস্ত/ আপিল গ্রহণ ‘নির্বাচনি ট্রাইব্যুনাল’ ও ‘নির্বাচনী আপিল ট্রাইব্যুনাল’-এ শুনানি করে নিষ্পত্তি করা হবে।

ইসি’র আইন শাখা থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গত ৩১ জানুয়ারি যষ্ঠ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ষষ্ঠ ধাপে ২২০টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্য ও সাধারণ ওয়ার্ডের সদস্য পদের নির্বাচনি বিরোধ সংক্রান্ত

দরখাস্ত/আপিল গ্রহণ, শুনানি ও নিষ্পত্তিতে ‘সিনিয়র সহকারী জজ’ এর সমন্বয়ে ‘নির্বাচনি ট্রাইব্যুনাল’ এবং ‘যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ’ এবং ‘অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট’ এর সমন্বয়ে ‘নির্বাচনি আপিল ট্রাইব্যুনাল’ গঠন করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে আরো বলা হয়েছে, স্থানীয় সরকার (ইউপি) আইন, ২০০৯ এর ধারা ২৩ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে নির্বাচন কমিশন, আইন ও বিচার বিভাগ, আইন ও বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের সঙ্গে পরামর্শ করে নির্বাচনের সব বিরোধ সংক্রান্ত শুনানি ও নিষ্পত্তি করতে এ ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার আইন অনুযায়ী, নিবার্চনের ফলাফল গেজেটে প্রকাশের তারিখ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে নিবার্চন বা নিবার্চনি কার্যক্রম বিষয়ে আপত্তি উত্থাপন ও প্রতিকার প্রার্থনা করে নিবার্চন ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করা যাবে। মামলা হলে নিবার্চন ট্রাইব্যুনাল ১৮০ দিনের মধ্যে তা নিষ্পত্তি করবে।

নির্বাচন ট্রাইব্যুনালের রায়ে কোনো ব্যক্তি সংক্ষুদ্ধ হলে উক্ত ব্যক্তি রায় ঘোষণার তারিখ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে নিবার্চন আপিল ট্রাইব্যুনালে আপিল করতে পারবেন। আপিল দায়ের করা হলে নিবার্চন আপিল ট্রাইব্যুনাল ১২০ দিনের মধ্যে তা নিষ্পত্তি করবে। নিবার্চন আপিল ট্রাইব্যুনালের রায় চূড়ান্ত বলে গণ্য করা হবে।- রাইজিংবিডি.কম