ইচ্ছাকৃত ভাবেই ঘটানো হয়েছিল চিনের বিমান দুর্ঘটনা! বø্যাক বক্স থেকে মিলল চাঞ্চল্যকর তথ্য

আপডেট: মে ১৮, ২০২২, ১২:৪৯ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


গত মার্চে চিনের দক্ষিণ গুয়াংঝাউ প্রদেশে পাহাড়ি এলাকায় ১৩২ জন যাত্রী নিয়ে ভেঙে পড়ে বোয়িং ৭৩৭ বিমান। দুর্ঘটনায় কেউই বাঁচেননি। এবার সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। মনে করা হচ্ছে, ইচ্ছাকৃত ভাবেই ঘটানো হয়েছিল ওই দুর্ঘটনা।

উদ্ধার হওয়া বিমানের ব্ল্যাক বক্স থেকেই এমনটা জানা যাচ্ছে বলে এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যাচ্ছে।
দুর্ঘটনাটি যেখানে ঘটে, সেখানে রয়েছে ঘন জঙ্গল। তল্লাশি চালানোর পরে সেখানেই মেলে বিমানটির ব্ল্যাক বক্স। উল্লেখ্য, ব্ল্যাক বক্স হল একটি ইলেকট্রনিক রেকর্ডিং যন্ত্র, যা বিমানের মধ্যে থাকে।

সেখানেই বিমানটির উড়ান চলাকালীন সব তথ্য জমা পড়ে। চিনা বিমানটির ব্ল্যাক বক্স থেকে প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখেন মার্কিন আধিকারিকরা। তাঁরাই জানাচ্ছেন, বারবার এয়ার ট্র্যাফিক কন্ট্রোলাররা ফোন করলেও সাড়া দেননি বিমান চালক।

সেই সঙ্গে এও জানা গিয়েছে, দুর্ঘটনা চালকের নিয়ন্ত্রণহীনতার জন্য ঘটেছে, এরকম মনে করার মতো তথ্য মেলেনি। বরং ইচ্ছাকৃত ভাবেই সেটিকে লম্বভাবে মাটির দিকে নামিয়ে আনা হয়েছিল। দেখা গিয়েছে বিমানটি প্রায় ৯০ ডিগ্রি কোণেই আকাশ থেকে নেমে এসে আছড়ে পড়েছিল মাটিতে।

কিন্তু কেন তা করা হল? এখনও পর্যন্ত এব্যাপারে ধোঁয়াশাতেই রয়েছেন তদন্তকারীরা। জানা গিয়েছে, চালক ও তাঁর সহকারীদের কারও স্বাস্থ্যজনিত কোনও সমস্যা ছিল না। কারওই অর্থনৈতিক কিংবা পারিবারিক কোনও সমস্যা থাকার কথাও জানা যায়নি।

ফলে তাঁদের কেউ ইচ্ছাকৃত ভাবে বিমানটিকে ক্র্যাশ করাবেন সেই সম্ভাবনা নেই। এও জানা গিয়েছে, বিমান থেকে কোনও আপৎকালীন সংকেতও পাঠাননি চালক। এই সব তথ্য খতিয়ে দেখে মনে করা হচ্ছে, কেউ হয়তো ককপিটে ঢুকে পড়ে তা দখল করেছিল। এবং তারপর ইচ্ছাকৃত ভাবেই বিমানটিকে ক্র্যাশ করিয়েছিল।

প্রসঙ্গত, দুর্ঘটনার পরে ভাইরাল হয়েছিল বিমানটির শেষ তিন মিটিরে হাড়হিম ভিডিও। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গিয়েছিল, মাঝ আকাশ থেকে একেবারে ৯০ ডিগ্রি কোণে অর্থাৎ নাক বরাবর মাত্র ২ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে ২৯০০০ ফুট থেকে সোজা ৯ হাজার ৭৫ ফুটে নেমে আসে বিমানটি। এরপর মাত্র ২০ সেকেন্ডে আরও ৩২২৫ ফুট নামতেই বিমানের সঙ্গে সমস্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ