ঈশ্বরদীতে অসময়ে নদী ভাঙনে কৃষকের ক্ষতি

আপডেট: নভেম্বর ২২, ২০২১, ৯:১৯ অপরাহ্ণ


ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি:


পাবনার ঈশ্বরদীতে অসময়ে শান্ত পদ্মা নদীতে ব্যাপক ভাঙন শুরু হওয়ায় ক্ষতির মুখে পড়েছেন কৃষক। নদীতে পানি কমার সাথে সাথে হঠাৎ করে নদীর সাঁড়া এলাকায় ব্যাপক ভাঙন শুরু হয়েছে। পদ্মা পাড়ের বাসিন্দারা নদী ভাঙনে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। গতকাল সোমবার বিকেলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হঠাৎ নদী ভাঙনে নতুন করে আরো প্রায় ৫০ বিঘা ফসলী জমি বিলীন হয়ে গেছে। এর আগে ৩টি বালুবাহী নৌকা ডুবে গেছে, বালু উত্তোলনের ২০০ ফুট মোটা পাইপও ভেসে গেছে পানির তোড়ে।

উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নের থানাপাড়া, ব্লকপাড়া ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়ি বাঁধ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, কিছুক্ষণ পরপর পাড় ভেঙে নদীতে আছড়ে পড়ছে। নদীর পাড়ে আগে থেকে নোঙর করে রাখা ৩টি নৌকা নদী ভাঙনের কবলে পড়ে তলিয়ে গেলেও তা রক্ষা করা যায়নি। এলাকার সাইফুল আলম, সাগর হোসেন ও জিল্লর রহমানের ৩টি নৌকা তাদের চোখের সামনেই পানিতে তলিয়ে যায়। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীরা ছুটে এসে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসীকে সান্তনা দেন। স্থানীয় এমপি নুরুজ্জামান বিশ্বাস ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের বিষয়টি তাৎক্ষনিকভাবে জানানো হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ও সাঁড়া ইউপি চেয়ারম্যান এমদাদুল হক রানা সরদার নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

স্থানীয় বাসিন্দা জিল্লুর রহমান জানান, কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই শত শত বিঘা ফসলী জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। প্রত্যক্ষদর্শী এলাকাবাসী জানান, নদীর পানি কমে শান্ত নদীতে হঠাৎ ভাঙন শুরু হলে নদী পাড়ের বাসিন্দারা আতঙ্কিত হয়ে ছুটে যান নদীর পাড়ে। সাঁড়ার ব্লকপাড়া ও থানাপাড়ার বাসিন্দারা হঠাৎ ভাঙনে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

সাঁড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমদাদুল হক রানা সরদার বলেন, আচমকা নদীতে ভাঙন শুরু হওয়ায় এলাকাবাসীর মত তিনিও চিন্তিত। বিষয়টি পাবনা-৪ আসনের এমপি, পানি উন্নয়ন বোর্ড, জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে।

পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান বিশ্বাস বলেন, ভাঙনের খবর পেয়ে সাথে সাথেই প্রশাসনকে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বলেছি। পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম জানান, ঈশ্বরদীর সাঁড়া এলাকায় পদ্মা নদীতে ভাঙন শুরু হওয়ার খবর আমরা পেয়েছি, এখনো বেড়ি বাঁধের কোন ক্ষতি হয়নি, ভাঙন বিষয়ে নজর রাখা হয়েছে, ভাঙন যদি আরো বৃদ্ধি পায় তবে ভাঙনরোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পিএম ইমরুল কায়েস বলেন, খবর পেয়ে তাৎক্ষনিকভাবে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। হঠাৎ নদী ভাঙনে চরের জমি-জমা ও কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাদের আর্থিক সহায়তা প্রদানের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ