ঈশ্বরদীতে ঘুরতে গিয়ে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরল পাঁচ বন্ধু

আপডেট: জুলাই ৫, ২০২৪, ৫:০৪ অপরাহ্ণ


ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি :


সাত বন্ধু এক সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে পাঁচ জনই বাড়ি ফিরে এসেছে লাশ হয়ে। বাকি দুজন এখনো মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) রাত ৯টার দিকে ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়কের দাশুড়িয়ায় পাবনা সুগার মিলের সামনে প্রাইভেটকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ৫ বন্ধু মারা যান।

নিহতরা হলেন. ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া ইউনিয়নের আজমপুর গ্রামের মাসুম আলীর ছেলে সিফাত হোসেন (১৯), একই গ্রামের ইলিয়াছ আহমেদের ছেলে শিশির (১৯), আনোয়ার কবিরের ছেলে বিজয় (১৯), রেজাউল করিমের ছেলে জিহাদ (১৯) ও সলিমপুর ইউনিয়নের ভাড়ইমারি গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে শাওন হোসেন (১৯)।

এ ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় নাইম ও শাহিদ রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার (৫ জুলাই) খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গুরুতর আহত দুজন এখনো লড়ছেন মৃত্যুর সঙ্গে। নিহত ৫ বন্ধুর ৬ জন ভকেশনাল ট্রেনিং ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থী এবং একজন ঢাকায় একটি প্রতিষ্ঠানের গাড়িচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন বলে জানা গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা আলমাস হোসেন হিটু জানান, বন্ধুদের মধ্যে বিজয় ঢাকার একটি প্রতিষ্ঠানে গাড়ি চালক হিসেবে কর্মরত। সে ছুটিতে বাড়ি এলে তার সহপাঠি বন্ধুদের ডেকে নিয়ে তার গাড়িতে করে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরতে যেতো। বৃহস্পতিবারও বিজয় ঢাকা থেকে ছুটিতে বাড়ি এসে তার ঘনিষ্ট ৬ বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে বেরিয়েছিল।

বিকেল থেকে ঈশ্বরদীর বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ফিরে রাত ৯টার দিকে তারা দাশুড়িয়া থেকে কালিকাপুরের দিকে যাচ্ছিল। ৯টার দিকে ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়কের দাশুড়িয়ায় পাবনা সুগার মিলের সামনের মিলগেট এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাদের গাড়িটি রাস্তার পাশের পাশের বৈদ্যুতিক খুঁটি ও গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ঘটনাস্থলেই তিনজন মারা যান। আহত ৪ জনকে উদ্ধার করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর সেখানে ২ জনকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ হতাহতদের উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ঈশ্বরদী থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। দুর্ঘটনা কবলিত গাড়িটি উদ্ধার করা হয়েছে।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ