ঈশ্বরদীতে টিটিই ইন্সপেক্টরকে প্রকাশ্যে হাতুড়ি পেটা করলো টিএলআর শ্রমিক

আপডেট: ডিসেম্বর ২, ২০২২, ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

সেলিম সরদার, ঈশ্বরদী :


পাবনার ঈশ্বরদীতে প্রকাশ্যে হাতুড়ি হাতে নিয়ে বরকতউল্লাহ আল-আমিন নামের এক সিনিয়র টিটিই ইন্সপেক্টরকে (এসআরআই) হাতুড়িপেটা করে ‘কলিজা বের করার’ হুমকি প্রদানের অভিযোাগ করা হয়েছে সাদেকুল ইসলাম নামে ঈশ্বরদী রেলেরই এক শ্রমিকের বিরুদ্ধে। তিনি ঈশ্বরদী রেলের উর্ধ্বতন উপসহকারী প্রকৌশল বিভাগের ক্যারেজ এন্ড ওয়াগন ডিপোর অস্থায়ী শ্রমিক। শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) দুপুরে ঈশ্বরদী রেলওয়ে স্টেশনের ২ নম্বর প্লাটফর্মে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় সেখানে ঈশ্বরদী রেলওয়ের থানার পুলিশ, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরাও উপস্থিত ছিলেন। রেলওয়ের আইন-শৃংখলা রক্ষাকারি বাহিনীর সদস্যরা ওই হাতুড়িটা জব্দ করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গণপরিবহন ধর্মঘটের কারণে শুক্রবার ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন স্টেশনে ট্রেন যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় ছিল। বিনা টিকিটের যাত্রীরা যেন ট্রেনে উঠতে না পারে সে জন্য শুক্রবার সকাল থেকে ঈশ্বরদী রেলওয়ে স্টেশনে ব্লক চেকিং অভিযান চলছিল। পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ টিকিট চেকিং দল সেখানে টিকিট চেকিং করছিল। এসময় প্লার্টফর্মে বসে থাকা সাদেকুল ইসলাম নামের ওই যাত্রীর টিকিট দেখতে চাইলে তিনি নিজেকে রেলওয়ে শ্রমিক হিসেবে নিজেকে পরিচয় দেন। এসময় তার পরিচয়পত্র দেখতে চাইলে কার্ড বের করেন। দায়িত্বরত টিটিই ইন্সপেক্টর বরকতউল্লাহ আল-আমিন তার কার্ডটি নিয়ে পাকশী বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ক্যারেজ) মমতাজুল ইসলাম ও বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেনকে অবগত করেন। এতে ‘অপমানিত বোধ করেন’ ওই রেলশ্রমিক সাদেকুল ইসলাম।

পরে ওই রেলশ্রমিক স্টেশনে হাতুড়ি হাতে নিয়ে প্রকাশ্যে রেলপুলিশ নিরাপত্তা বাহিসীর সদস্য ও ট্রেনযাত্রীদের সামনে ‘হাতুড়ি দিয়ে আমি তোর কলিজাটা বের করে ফেলবো, চিনিস আমাকে-বলে হুমকি দেন ওই টিটিই ইন্সপেক্টরকে। তাৎক্ষনিকভাবে সেখানে কর্তব্যরত রেলওয়ে পুলিশ, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা ওই হাতুড়ি তার হাত থেকে জব্দ করে। এ বিষয়ে রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন টিটিই ইন্সপেক্টর বরকতউল্লাহ আল-আমিন। ঈশ্বরদী ক্যারেজ এন্ড ওয়াগন ডিপোর উপসহকারী প্রকৌশলী তন্ময় সরকার জানান, ঘটনাটি শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পাবার পর কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেন জানান, বিষয়টি মুঠোফোনে পাকশী বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ক্যারেজ) মমতাজুল ইসলামকে তাৎক্ষণিকভাবে জানানো হয়েছে, দেখি তিনি কি পদক্ষেপ নেন?

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) শাহ সুফী নুর মোহাম্মদ এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, একজন অস্থায়ী শ্রমিক হয়ে যদি সে কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সঙ্গে এমন ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করে, তবে এমন শ্রমিকের রেলওয়েতে প্রয়োজন নেই। স্টেশন কর্তৃপক্ষের লিখিত অভিযোগ পেলে তাকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হবে। অভিযোগ অস্বীকার করে সাদেকুল ইসলাম বলেন, আমার কার্ড নেওয়ার সময় টিটিই ইন্সপেক্টর বরকতউল্লাহ আল-আমিন হেসে হেসে কথা বলছিল, তুই, তোকারি করছিল, সেকারনে তার কাছে আমি জানতে চেয়েছি, কেন তিনি এমনটা করেছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ