ঈশ্বরদীতে বিয়ে বাড়িতে ডাকাতি || স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল লুট

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৭, ১:৩৩ পূর্বাহ্ণ

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি


ঈশ্বরদীর স্কুলপাড়া এলাকায় শাহানশাহ্ আলমগীর বাবু নামে এক এয়ার ট্রাভেল্স ব্যবসায়ির বাড়িতে গত শনিবার রাতে দূর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতরা বাড়ির লোকজনকে মারপিট করে স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে। বাড়িটিতে ওই দিন ব্যবসায়ি বাবুর ভাগনে ও প্রথম আলোর পাবনার আলোকচিত্রী হাসান মাহমুদের বিবাহত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ছিল। ঘটনায় হাসান মাহমুদ বাদি হয়ে গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় ঈশ্বরদী থানায় একটি ডাকাতি মামলা করেছেন।
হাসান মাহমুদ জানান, শনিবার রাতে তার মামার বাড়িতে বিবাহত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ছিল। এদিন প্রচুর আত্মিয় স্বজন ওই বাড়িতে আসে। সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষে রাত ১১ টার দিকে হাসান তার স্ত্রীকে নিয়ে নিজের বাড়িতে যায়। এ সময় বাড়ির লোকজন ঘুমিয়ে পড়ে। রাত আড়াইটার দিকে একদল ডাকাত বাড়ির কলাপসেবল গেটের তিনটি তালা ও দ্বিতীয় তলায় ব্যাবসায়ি শাহানশাহ্ বাবুর ফ্লাটের দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। তারা বাড়ির লোকজনকে মারপিট করে চুপ থাকতে বলে। হাসান মাহমুদের নানী হাসিনা বানু ও মামি নুরুন্নাহারের গলায় রামদা ঠেকিয়ে হত্যার হুমকী দেয়। মামা শাহানশাহ্ আলমগীরকে ছুরিকাঘাতে মারাত্বক জখম করে ডাকাতদল। একপর্যায়ে ভয়ে সবাই চুপ হয়ে গেলে ডাকাতরা দুইটি স্টিলের ও একটি কাঠের আলমারী ভেঙে ১৮ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকাসহ প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল লুটে নিয়ে পালিয়ে যায়।
নানী হাসিনা বানু জানান, ডাকাতদের হাতে রামদা, লোহার রড, টর্চ লাইট ছিল ও আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। তারা একে অপরকে মাস্টারসহ বিভিন্ন সাংকেতিক ভাষায় ডাকাডাকি করছিল। কিছু বলতে গেলেই ‘চুপ, কথা বলবিনা, মেরে ফেলবো’ বলে ভয় দেখাচ্ছিল। ফলে কেউ কোন কথা বলে নি।
হাসান মাহমুদ দাবি করেন, তার বিবাহত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করেই এই ডাকাতির ঘটনা ঘটানো হয়েছে। তিনি এর সঠিক তদন্ত ও ডাকাতদের খুঁজে বের করার দাবি জানান।
এ বিষয়ে ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিম উদ্দীন বলেন, আমরা এজাহারটি পেয়ে ওই বাড়ি পরিদর্শন করেছি। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ