ঈশ্বরদীতে শ্রমিক নেতাকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে রক্তাক্ত || প্রতিবাদে রাস্তায় শতাধিক সিএনজি রেখে সড়ক অবরোধ

আপডেট: মার্চ ৬, ২০১৭, ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি


ঈশ্বরদীর প্রধান সড়কে সিএনজিন চালিত শত শত অটোরিক্সা আড়াআড়িভাবে রেখে সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ মিছিল করে শ্রমিকনেতা সোহেল রানাকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে আহত করার প্রতিবাদ জানিয়েছে সিএনজি চালক ও শ্রমিকরা। গতকাল রোববার ঈশ্বরদীর জিরোপয়েন্ট রেলওয়ে গেট এলাকায় ঘন্টা ব্যাপী এ অবরোধ ও বিক্ষোভ চলে। খবর পেয়ে র‌্যাব ও পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার পর যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও সিএনজি চালকরা জানান, পূর্বশত্রুতার জের ধরে রোববার দুপুরে ঈশ্বরদীর রেলগেট এলাকায় বিমানবন্দর সড়কের ওপর প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন করে লোহার রড, চেইন ও লাঠি দিয়ে সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানাকে রাস্তায় ফেলে বেধড়ক পিটিয়ে রক্তাক্ত করে তার প্রতিপক্ষের কয়েকজন। এসময় সোহেলকে রক্ষা করতে দু’একজন এগিয়ে আসতে চাইলে তারা অস্ত্র উঁচিয়ে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। এক পর্যায়ে পথচারী ও বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রী ও স্থানীয়রা দলবদ্ধ হয়ে এগিয়ে এলে তারা সোহেলকে ফেলে চলে যায়। এখবর শুনে কিছুক্ষনের মধ্যেই শত শত সিএনজি চালকরা তাদের অটোরিক্সা নিয়ে রেলগেটে এসে এ ঘটনার প্রতিবাদে আহত সোহেল রানার রক্তাক্ত শরির প্রদর্শন করে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। এ সময় রাস্তার দু’পাশে আড়াআড়িভাবে অটোরিক্সা থামিয়ে রেখে তারা বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে রাখে। পুলিশ ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও শাস্তির আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আরিফ বিশ্বাস, আনিছ ও মামুনকে আসামি করে ঈশ্বরদী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন আহত শ্রমিক নেতা সোহেল রানা।
ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আসামিদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে, তাদের গ্রেফতার করতে ইতিমধ্যে পুলিশ অভিযানে বের হয়েছে বলে জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ