ঈশ্বরদীর রাস্তার পাশে স্কুলছাত্রীর রক্তমাখা স্কুলড্রেস || মাইকিং করেও মিলছে না হদিস

আপডেট: আগস্ট ২৩, ২০১৭, ১২:৫০ পূর্বাহ্ণ

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি


ঈশ্বরদীর একটি গ্রামের রাস্তার ধারে লিচুবাগান থেকে রক্তমাখা স্কুলড্রেস উদ্ধার নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। দমকল বাহিনী, পুলিশ ও এলাকার শত শত মানুষ ওই গ্রামের লিচু বাগান ও আশেপাশের জঙ্গলে দিনভর ব্যাপক খোঁজাখূঁজি করে এবং দমকল বাহিনীর ডুবুরিদল পুকুরে নেমেও পায়নি কোন স্কুলছাত্রীর মৃতদেহ। গ্রামের সব মসজিদের মাইকে এবং গ্রামে গ্রামে আলাদা ভাবে মাইকিং করা হয়েছে, পাবনা পুলিশ সুপার ফেসবুকে ওই রক্তমাখা স্কুল ড্রেসের ছবি দিয়ে সকলের কাছে কোন স্কুলছাত্রী নিখোঁজ হলে খবর দিতে অনুরোধও করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার ঈশ্বরদীর সলিমপুর ইউনিয়নের মানিকনগর গ্রামের একটি কালভার্ট, লিচুবাগান ও পুকুরপাড়ের পাশে ঝোপের মধ্যে থেকে ওই রক্তমাখা স্কুলড্রেস উদ্ধার করা হয়। স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে ঈশ্বরদী থানার পুলিশ ও দমকল বাহিনীর ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে আসে। শত শত উৎসুক মানুষও ভিড় করে ওই পুকুরপাড়ে। স্কুলড্রেসটি মানিকনগর বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের কোন ছাত্রীর বলে ধারণা করা হয়েছে। মানিকনগর বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনিসুর রহমান জানান, স্কুলড্রেসটি এই স্কুলের কোন ছাত্রীর হতে পারে তবে এখন পর্যন্ত কোন ছাত্রী নিখোঁজ রয়েছে কিনা তা জানা সম্ভব হয় নি। স্থানীয় বাসিন্দা খায়রুল বাসার মিঠু জানান, স্কুল ড্রেসের রং নীল কামিজ ও সাদা পায়জামা দেখে এটি মানিকনগর বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের স্কুলড্রেস বলে সনাক্ত করা হয়েছে। ওই স্কুলের ছাত্রী ও অভিভাবকরা রক্তমাখা স্কুলড্রেসটি দেখতে ভিড় করে। তবে কেউ বলতে পারে নি এটি কার। পুলিশ ও এলকাবাসী রক্তমাখা স্কুলড্রেসের ধরণ দেখে ধারণা করেছেন, ৮ম থেকে দশম শ্রেণির কোন ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হয়তো হত্যা করে লাশ গুম করে রাখতে পারে দুর্বৃত্তরা। এ ধারণা থেকেই পুলিশ এলাকায় ব্যাপক তল্লাশী করছে বলে জানান ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক।
ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিম উদ্দীন জানান, পুলিশ এখনো নানাভাবে খোঁজ নিচ্ছে তবে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কোন ছাত্রী নিখোঁজের সন্ধান পাওয়া যায় নি। পাবনা পুলিশ সুপার জিহাদুল কবীর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ