ঈশ্বরদী ঢালারচর রলেপথ নর্মিাণে নকশা পরর্বিতনরে অভযিোগ

আপডেট: জানুয়ারি ১৪, ২০১৭, ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ

ঈশ্বরদী প্রতনিধিি  


ঈশ্বরদী থকেে ঢালারচর রলেপথ নর্মিাণে বড়ো উপজলো অংশে মূল নকশা পরর্বিতন করে নতুন নকশা বানয়িে বাঁকা করে রলেপথ নর্মিাণ করা হচ্ছে বলে অভযিোগ করছেনে এলাকাবাসী। এতে এলাকাবাসীর ক্ষতি বড়েছে।ে তবে র্কতৃপক্ষ বলছ,ে পরর্বিতন নয়, মূল নকশা সংশোধন করা হয়ছেে মাত্র।
এ ব্যাপারে ক্ষতগ্রিস্ত ব্যক্তদিরে পক্ষ থকেে প্রধানমন্ত্রীর র্কাযালয়, রলে মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লষ্টি বভিন্নি বভিাগে লখিতি অভযিোগ দওেয়া হয়ছে।ে অভযিোগকারী ব্যক্তরিা বড়োর মালদাহ, কোমরপুর, হজিলাকোটা, বালন্দিার,ি বড় শ্যামপুর ও মহষিাকোলা মৌজার বাসন্দিা।
লখিতি অভযিোগ সূত্রে জানা যায়, রলেলাইন স্থাপনরে লক্ষ্যে ২০১১ সালে ওই সব মৌজার জমি পরমিাপ করা হয়। এর আলোকে ২০১২ সালে সখোনে রলেলাইন নর্মিাণরে নকশা প্রণয়ন করে অনুমোদন দয়ো হয়। নকশায় বড় শ্যামপুর, মালদাহ ও মহষিাকোলা মৌজায় এসএ দাগরে নকশার ওপর দয়িে রলেলাইন দখোনো হয়। কন্তিু বালন্দিার,ি হজিলাকোটা ও কোমরপুর মৌজায় নকশার দাগহীন সাদা অংশ দয়িে রলেলাইন দখোনো হয়।
মূল নকশায় যখোনে সোজা করে রলেলাইন দখোনো হয়ছেলি, সটেি ২০১৬ সালরে শষে দকিে পরর্বিতন করে বাঁকা করে দখোনো হয়ছে।ে এতে রলেপথ নর্মিাণরে ব্যয় যমেন বাড়ব,ে তমেনি ক্ষতগ্রিস্ত ভূমরি মালকিরে সংখ্যাও বাড়বে বলে জানান তারা।
ওই এলাকার কয়কেজন বলনে, নতুন এই অনুমোদনহীন নকশা অনুযায়ী ইতোমধ্যে কয়কেটি মৌজার প্রচুর জমরি মাট,ি ফসল ও গাছপালা কটেে নষ্ট করা হয়ছে।ে একর্পযায়ে এলাকাবাসী গত ডসিম্বেররে মাঝামাঝি রলেপথ নর্মিাণে বাধা দয়ে। এরপর থকেে ওই এলাকায় রলেপথ নর্মিাণরে কাজ বন্ধ রয়ছে।ে
এলাকাবাসী ইতমিধ্যে বষিয়টরি প্রতকিার চয়েে প্রধানমন্ত্রীর র্কাযালয়, রলেপথ মন্ত্রণালয়, রলেপথ নর্মিাণরে সঙ্গে যুক্ত প্রকল্প পরচিালকরে র্কাযালয়, জলো প্রশাসকরে র্কাযালয়সহ বভিন্নি দপ্তরে লখিতি আবদেন করছেনে।
বালন্দিারি মৌজার ইউসুফ আলী বলনে, ‘রলেপথ নর্মিাণরে লোকজন অবধৈভাবে আমার চার বঘিা জমরি মাটি ও ফসল কটেে ফলেে তা রলেপথ নর্মিাণরে জন্য দখলে নয়িছে।ে অথচ নতুন-পুরোনো দুই নকশাতইে রলেপথটি আমার জমরি অনকে দুর দয়িে যাওয়ার কথা। এতে পরবিার পরজিন নয়িে পথে বসতে হব।ে’ হজিলাকোটা গ্রামরে মনরিুজ্জামান বলনে, ‘আগরে নকশা অনুযায়ী আমাদরে জমি থকেে অনকে দুর দয়িে রলেলাইন যাওয়ার কথা। ডসিম্বেররে ১২ অথবা ১৩ তারখিে রলেওয়রে লোকজন এসে আমাদরে জমি এবং আশপাশে খুঁটি ও লাল পতাকা পুঁতে দয়ে। খোঁজ নয়িে জানতে পার,ি নকশার পরর্বিতন করা হয়ছেে এবং সইে নকশার অনুমোদন নইে। একটি মহলরে ষড়যন্ত্ররে কারণে আমার মতো আড়াই শতাধকি কৃষকরে জমি এভাবে কড়েে নওেয়া হচ্ছ।ে’
ঈশ্বরদী-ঢালারচর রলেপথ নর্মিাণ প্রকল্প পরচিালক সুবক্তগীণ বলনে, আসলে নকশার পরর্বিতন করা হয়ন,ি সংশোধন করা হয়ছে।ে প্রথমে যে নকশাটি করা হয়ছেলি, তাতে কছিু ত্রুটি ছলি। রলেপথ নর্মিাণরে মতো বড় কাজে এ ধরনরে ত্রুটি থাকতইে পার।ে ত্রুটি সংশোধন করে যে পথে রলেলাইন নর্মিাণ করা হচ্ছ,ে তা বাঁকা নয় বরং আগরে চয়েে সোজা। এতইে বরং জমরি ক্ষতি অনকে কমব।ে