উত্তরাখন্ডের নদী, জঙ্গল, বায়ুকে জীবিত মানুষের মর্যাদা

আপডেট: এপ্রিল ৩, ২০১৭, ১২:২৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



গঙ্গা, যমুনা নদীর পরে এবার উত্তরাখন্ডের সব নদী, হিমবাহ, জঙ্গল, হ্রদ, বায়ু – সবকিছুকেই ‘জীবিত মানুষ’ এর অধিকার দিয়েছে সে রাজ্যের হাইকোর্ট।
দুই সদস্যের এক বেঞ্চ বলেছে সমস্ত প্রাকৃতিক সম্পদকে সংরক্ষণের জন্যই সেগুলিকে সেই সব সাংবিধানিক অধিকার দেয়া হল, যা ভারতের একজন নাগরিক পেয়ে থাকেন।
একজন ব্যক্তিকে আঘাত করলে আইন যা ব্যবস্থা নেয়া, এবার থেকে উত্তরাখন্ডের কোনও প্রাকৃতিক সম্পদকে আঘাত করলে সেই ব্যবস্থাই নেয়া হবে।
এর আগে ওই একই বেঞ্চ গঙ্গা আর যমুনা নদী দুটিকে ‘জীবিত মানুষ’ এর অধিকার দিয়েছিল।
এই দুটি নদীর উৎস – গঙ্গোত্রী আর যমুনোত্রী হিন্দুদের কাছে অতি পবিত্র তীর্থ। কিন্তু গঙ্গোত্রী গত ২৫ বছরে প্রায় ৮৫০ মিটার পিছিয়ে গেছে। বিচারপতি রাজীব শর্মা এবং অলোক সিংয়ের বেঞ্চ জানিয়েছে, “বিগত প্রজন্ম এই পৃথিবীকে যে নিষ্কলুষ অবস্থায় আমাদের হাতে তুলে দিয়েছে, আমাদেরও নৈতিক দায়িত্ব পরবর্তী প্রজন্মের কাছে সেভাবেই পৃথিবীকে তুলে দেয়া। একজন নাগরিকের প্রাপ্ত সব অধিকার এই প্রাকৃতিক সম্পদগুলিকে দিলে তাদের সংরক্ষণ সুষ্ঠু ভাবে করা যাবে।”
ললিত মিগলানি বলে এক আইনজীবীর দাখিল করা জনস্বার্থ মামলার রায়ে আদালত এই নির্দেশ দিয়েছে।
গঙ্গা এবং যমুনাসহ ভারতের প্রায় সব নদ-নদীই সাংঘাতিক ভাবে দুষিত।
শহরাঞ্চলের বর্জ্য, চাষের জমিতে ব্যবহৃত কীটনাশক, কারখানার বর্জ্য – সবই সরাসরি নদীতে ফেলা হয়।
যদিও তা আটকানোর জন্য কঠোর আইন রয়েছে।
এর আগে নিউজিল্যান্ডের একটি নদীকেও একই ভাবে জীবিত মানুষের অধিকার দিয়ে সেটিকে সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।- বিবিসি বাংলা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ