উত্তরা গণভবন থেকে স্বাধীনতাবিরোধী মোনায়েম খানের নামফলক অপসারণ

আপডেট: জুলাই ১৬, ২০১৭, ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


নাটোরের উত্তরা গণভবন থেকে স্বাধীনতাবিরোধী কুখ্যাত মোনায়েম খানের নামফলক অপসারণ করা হয়েছে। জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড, মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের আপামর জনগণের দাবির মুখে অবশেষে গতকাল শনিবার সকালে বিতর্কিত ওই নামফলকটি অপসারণ করা হয়।
এর মাধ্যমে নাটোর উত্তরা গনভবন তথা নাটোরের আপামর জনসাধারণ কলঙ্কমুক্ত হলো। নামফলক অপসারণের সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সাংসদ শফিকুল ইসলাম শিমুল, সাংসদ অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস, সাংসদ আবুল কালাম আজাদ, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক ড. আজাদুর রহমান, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমান, পৌর মেয়র ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড জেলা শাখার আহ্বায়ক উমা চৌধুরি জলি, মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সদস্যবৃন্দসহ অন্যান্যরা। নামফলকটি অপসারণের পর উপস্থিত জনতা আনন্দে উল্লাস করতে থাকে।
এসময় নাটোর পৌরসভার মেয়র ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড জেলা শাখার আহ্বায়ক উমা চৌধুরি জলি বলেন, এর আগে রাজাকারের নামে নাটোরের দুইটি সড়কের নামফলক অপসারণ করা হয়। জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড, মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের আপামর জনগণের দাবির মুখে স্বাধীনতার দীর্ঘদিন পরে হলেও প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের নির্দেশে ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শনিবার নাটোরের উত্তরা গণভবন থেকে স্বাধীনতাবিরোধী মোনায়েম খানের নামফলক অপসারণ করা হলো। আর এর মাধ্যমে নাটোরের আপামর জনসাধারণ কলঙ্কমুক্ত হলো।
এর আগে উত্তরা গণভবন থেকে কুখ্যাত মোনায়েম খানের নামফলক অপসারণের জন্য গত ২৯ জুন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ে এক চিঠি প্রেরণ করে।  ওই চিঠির আলোকেই গত ৪ জুলাই গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সুরাইয়া বেগম স্বাক্ষরিত এক চিঠি গত ৫ জুলাই নাটোরের গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মশিউর রহমানের কাছে এসে পৌছায়। চিঠিতে বলা হয়, নাটোর জেলার উত্তরা গণভবন হতে স্বাধীনতাবিরোধী কুখ্যাত রাজাকার মোনায়েম খানের নামফলক নাটোর জেলা প্রশাসনের সহায়তায় অপসারণ করে তা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে অবহিত করার জন্য গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীকে নির্দেশ দেয়া হলো। নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৯ জুলাই অপসারণের দিন ঠিক করা হলেও অজ্ঞাত কারণে তা অপসারণ করা হয় নি।  পরে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড, মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের আপামর জনগণের দাবির মুখে গতকাল সকালে কুখ্যাত স্বাধীনতাবিরোধী মোনায়েম খানের ওই নামফলকটি উত্তরা গণভবন থেকে অপসারণ করা হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ