উত্তর প্রদেশে থানার ভিতরেই বিক্ষোভকারীদের মার, ‘দাঙ্গাবাজদের রিটার্ন গিফট’, টুইট বিজেপি বিধায়কের

আপডেট: জুন ১২, ২০২২, ২:১২ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


থানার মধ্যে বেধড়ক মারধর করছে পুলিশ। নির্যাতনের মুখে পড়ে ‘অভিযুক্ত’দের কাতর আরজি, যেন তাঁদের রেহাই দেওয়া হয়। কিন্তু তাতেও ভ্রূক্ষেপ করছে না পুলিশ। লাঠি দিয়ে সমানে চলছে মারধর।

এখানেই শেষ নয়। গোটা ঘটনার ভিডিও টুইট করে বিজেপি বিধায়ক শালাব মনি ত্রিপাঠী লিখলেন, “দাঙ্গাবাজদের জন্য রিটার্ন গিফট”! উত্তরপ্রদেশের এই ঘটনায় পুলিশের নির্মমতা নিয়ে ফের প্রশ্ন উঠছে। ঘটনার প্রতিবাদ করে টুইট করেছেন উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব।

বহিষ্কৃত বিজেপি মুখপাত্র নূপুর শর্মার মন্তব্য নিয়ে দেশ জুড়ে উত্তেজনা চলছে। গত শুক্রবার উত্তরপ্রদেশের নানা জায়গায় নূপুরের মন্তব্যের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হয়। সেখানেই পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে বিক্ষোভকারীরা। তারপরে প্রায় ৩০০ জনকে আটক করে পুলিশ।

পোস্ট করা ভিডিওটি কবে কোথায় তোলা হয়েছে, সেই প্রসঙ্গে কিছুই বলেননি বিজেপি বিধায়ক শালাব মনি। তবে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, দিন দুয়েক আগে সাহারানপুরের একটি থানায় এই ভিডিওটি তোলা হয়েছে।

ভিডিওটি পোস্ট করে বিজেপি বিধায়ক লিখেছেন, “দাঙ্গাবাজদের জন্য রিটার্ন গিফট।” এই পোস্ট প্রকাশ্যে আসার পরেই তীব্র নিন্দা করছেন সমাজবাদী পার্টির বিধায়ক অখিলেশ যাদব। উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী টুইট করে লিখেছেন, “পুলিশের হেফাজতে থেকে মৃত্যু হয়েছে, এমন ঘটনায় শীর্ষে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ।

যে থানায় এইরকম ঘটনা ঘটছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। এরকম চলতে থাকলে বিচারব্যবস্থার প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলবে সাধারণ মানুষ। মানবাধিকার লঙ্ঘন, দলিতদের অত্যাচারের ঘটনায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে উত্তরপ্রদেশ।”

এই টুইট ঘিরে বিতর্ক তৈরি হতেই ফের সরব হয়েছেন মনি। তিনি বলেছেন, “যখন পুলিশের দিকে পাথর ছোঁড়া হচ্ছিল তখন তো কেউ কিচ্ছু বলেনি। দাঙ্গাবাজদের মারতেই সবাই প্রতিবাদ করছে।” এরপরে তিনি লিখেছেন, “এমন শাস্তি দিতে হবে যেন সাত জন্ম মনে থাকে।”

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসার সঙ্গে আরও জানা গিয়েছে, ফের বুলডোজার চালানো হবে এক বিক্ষোভকারীর বাড়িতে। প্রয়াগরাজে বিক্ষোভের মূল অভিযুক্ত মহম্মদের জাভেদের বাড়িতে নোটিস দিয়েছে ডেভেলপমেন্ট অথরিটি।

বলা হয়েছে, রবিবারের মধ্যেই বাড়ি খালি করে দিতে হবে। বাড়ি ভাঙার কারণ হিসাবে জানানো হয়েছে, নিয়ম মেনে তৈরি করা হয়নি। প্রয়োজনীয় অনুমতিও নেওয়া হয়নি বাড়ি তৈরির সময়ে।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন