উন্নয়নের মডেলে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সভায় বক্তারা

আপডেট: জুন ২২, ২০১৭, ১:১৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন আ’লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও নগর সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-সোনার দেশ

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে বক্তারা বলেছেন, আওয়ামী লীগ ধর্মভিত্তিক রাজনীতি পছন্দ করে না। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ সম্ভাবনাময় ও উন্নয়নের মডেলে পরিণত হয়েছে। ৩০ লাখ শহিদের রক্তের বিনিময়ে লাল সবুজের পতাকা পেয়েছি। দেশের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে আওয়ামী লীগের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। আওয়ামী লীগ মানেই বাঙালি জাতীয়তাবাদের মূলধারা ও সংগ্রামী মানুষের প্রতিচ্ছবি।
গতকাল বুধবার বিকেলে মহানগর আ’লীগের উদ্যোগে নগরীর উত্তরা কমিউনিটি সেন্টারে আ’লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও নগর সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
মহানগর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারের পরিচালনায় আ’লীগের নেতৃবৃন্দ বলেন, স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও উন্নয়নবিরোধী জামায়াত-বিএনপি অপশক্তি দেশের সামগ্রিক অগ্রযাত্রাকে ব্যহত করতে নিরীহ নাগরিককে হত্যাসহ বিভিন্ন ধরনের অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ মানেই জাতির অর্জন, সমৃদ্ধি ও সম্ভাবনার স্বর্ণালি দিন। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সুদীর্ঘ পথ পরিক্রমায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বাঙালি জাতির ভাষা আন্দোলন, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধসহ সকল গণতান্ত্রিক এবং সাধারণ মানুষের ভাত ও ভোটের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে নেতৃত্বদানের সুমহান গৌরব অর্জন করেছে। আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পর এ ভূখণ্ডে যা কিছু বিশাল অর্জন তা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই হয়েছে।
১৯৪৭ এর দেশ বিভাগ, ’৫২র ভাষা আন্দোলন, ’৬২র ছাত্র আন্দোলন, ’৬৬র ছয় দফা, ’৬৯এর গণঅভ্যুত্থান, ’৭০র যুগান্তকারী নির্বাচন আর ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা আন্দোলন সবখানেই সরব ছিল আওয়ামী লীগ। রাজশাহীতে আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীক দেখে প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনায় মনোনিত প্রার্থীকে নির্বাচিত করার জন্য আহ্বান জানানো হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুল খালেক, প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান খান, মহানগর আ’লীগের সহসভাপতি সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী, মীর ইকবাল, মোহাম্মদ আলী কামাল, শফিকুর রহমান বাদশা, নিঘাত পারভীন, নওশের আলী, মাহফুজুল আলম লোটন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জমান আসাদ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার, রাসিকের সাবেক দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র সরিফুল ইসলাম বাবু, মহানগর আ’লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, রেজাউল ইসলাম বাবুল, নাঈমুল হুদা রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকার, প্রচার সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মো. কামারুজ্জামান, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, আইন সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুসাব্বিরুল ইসলাম, উপ-প্রচার সম্পাদক মীর ইসতিয়াক আহম্মেদ লিমন, উপ-দফতর সম্পাদক শফিকুল ইসলাম দোলন, সদস্য এনামুল হক কলিন্স, মকিদুজ্জামান জুরাত, মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামাণিক দেবু, নগর জাসদের সভাপতি শফিকুজ্জামান শফিক, মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি বদরুজ্জামান খায়ের, সাধারণ সম্পাদক আবদুস সোহেল, সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি আবদুল মমিন, সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকার, ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান কামরুসহ আ’লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ ও অন্যান সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।