উষ্ণ অভ্যর্থনায় মোদীর চমক

আপডেট: এপ্রিল ৮, ২০১৭, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সূচিতে ছিল না, কর্মকর্তারাও আগে থেকে কিছু বলেননি, কিন্তু শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে ফুল হাতে নিজেই বিমানবন্দরে হাজির নরেন্দ্র মোদী।
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার দুপুরে নয়া দিল্লির পালাম বিমান ঘাঁটিতে পৌঁছালে এভাবেই চমক দেখিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।
চার দিনের এই সফর ঘিরে উচ্চাশার কথা বলা হচ্ছে দুই পক্ষ থেকেই। দুই প্রধানমন্ত্রীও দুই দেশের সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন।
সরকারি সূচিতে বলা হয়েছিল, বিমানবন্দরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন ভারতের শিল্প প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। দিল্লিতে বাংলাদেশের হাই কমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলীও থাকবেন। কিন্তু হাসিনাকে স্বাগত জানাতে প্রটোকল ভেঙে বাড়তি নিরাপত্তা না নিয়ে মোদী বিমানবন্দরে হাজির হন বলে আউটলুক ইন্ডিয়ার খবর।
শেখ হাসিনা বিমানের সিঁড়ি দিয়ে নেমে এলে নরেন্দ্র মোদী তার হাতে ফুলের তোড়া তুলে দিয়ে করমর্দন করেন।
ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গোপাল বাগলে এক টুইটে লিখেছেন- “একজন ঘনিষ্ঠ বন্ধুর জন্য উষ্ণ অভ্যর্থনা!”
বাগলে বলছেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে এভাবে স্বাগত জানানোর মধ্যে দিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী তার আন্তরিকতারই প্রকাশ ঘটিয়েছেন।
আর শেখ হাসিনার হাতে ফুল তুলে দেওয়ার ছবি টুইট করে মোদী লিখেছেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে পেরে তিনি আনন্দিত।
পরে আরেক টুইটে মোদী বলেন, “আমাদের দুই দেশের সম্পর্ক নতুন পর্যায়ে নিয়ে যেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আমি সংকল্পবদ্ধ।”
শুক্রবার ভারতের ইংরেজি দৈনিক হিন্দুতে প্রকাশিত এক নিবন্ধে শেখ হাসিনাও আশা প্রকাশ করেছেন, তার এই সফরের মধ্যে দিয়ে ভারত ও বাংলাদেশের সহযোগিতার সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছাবে।
শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর শেখ হাসিনাকে গাড়ি পর্যন্ত এগিয়ে দেন মোদী। বিমানবন্দর থেকে শেখ হাসিনাকে নিয়ে যাওয়া হয় ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে, যেখানে তিনি এই সফরে থাকবেন।
শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতি ভবনের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার পর বিমান থেকে নেমে আসেন প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী এফবিসিসিআই সভপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদসহ ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের সদস্যরা।
বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা সবাই একসঙ্গে দাঁড়িয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে সেলফিও তোলেন।- বিডিনিউজ