উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিতে পেরে খুশি শতবর্ষী দুই বান্ধবী সুখীমন ও মাজেদা

আপডেট: জানুয়ারি ৭, ২০২৪, ৩:০৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহীতে উৎসবমুখর পরিবেশে রোববার (৭ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। এদিন বেলা সাড়ে ১১টায় পবা উপজেলার পুড়াপুকুর এলাকার কবি কাজী নজরুল ইসলাম কলেজ ভোটকেন্দ্রে ভ্যানে চেপে ভোট দিতে এসেছেন শতবর্ষী বৃদ্ধা দুই বান্ধবী সুখীমন ও মাজেদা বেগম। বয়সের ভারে ঠিকমতো চলাফেরা করতে পারেন না।

তবুও নতুন ভোটার নাতনি তাসকিন খাতুনের সঙ্গে ভ্যানে চেপে ভোটকেন্দ্রে এসেছেন। তাদের ভোট দিতে সহায়তা করেন কেন্দ্রটির পোলিং অফিসার। তারপর আনসার সদস্যদের সহযোগিতায় গোপন কক্ষে গিয়ে ভোট দিয়ে ভ্যানে চেপে বাড়ি ফিরে যান। শতবর্ষী বৃদ্ধা সুখীমন ও মাজেদা বেগমের বাড়ি পবা উপজেলার পারিলা ইউনিয়নের বালানগর গ্রামে।

এদিকে এই ভোটকেন্দ্রে ব্যাপক ভোটারের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। পুরুষের তুলনায় নারী ও নতুন ভোটারের সংখ্যা ছিল বেশি।
ভোট দিয়ে শতবর্ষী বৃদ্ধা সুখীমন বিবি বলেন, ‘ভোটের পরিবেশ ভালো ছিল। তার বাড়ি ভোটকেন্দ্র থেকে কিছুটা দূরে বালানগর গ্রামে। তাই ভ্যানগাড়িতে ভোট দিতে এসিছি।’
ভোট দেয়া শেষে মাজেদা বেগম সোনার দেশকে বলেন,‘হামার জন্ম ১০ জানুয়ারি ১৯২২, তই বয়স একশো বছরের বেশি হয়ে গেছে। লাঠি ছাড়া চলিবার পারি না। ভোট দিবার পারে মোর খুব ভাল লাগেচে। জীবনত মনে হয় না আর ভোট দিবার পারুম। এইবার ভোট দেবার পেরে শান্তি পানু।’

দাদির সাথে প্রথম বারের মত ভোট দিয়ে এসেছে তাসকিন খাতুন। তিনি সোনার দেশকে জানান, ‘দাদির অনেক বয়স হয়েছে। শুয়ে থাকা ছাড়া কোনো কিছু করতে পারেন না। লাঠি ছাড়া হাঁটতেও পারেন না। কয়েক দিন থেকেই দাদি বলছে, ভোটটা নষ্ট করা যাবে না। এবার আমিও ভোট দিতে যাব। তবে ভোট দেওয়ার প্রতি দাদির খুব আগ্রহ দেখে, তাকে ভ্যানগাড়িতে করে ভোটকেন্দ্রে নিয়ে আসছি। প্রথম বারের মত ভোট দিতে পেরে আমারও অনেক ভালো লাগছে।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ