উৎসবের আবহে শুরু হচ্ছে জাতীয় লিগ

আপডেট: অক্টোবর ১০, ২০১৯, ১২:৫১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ সামনে রেখে ক্রিকেটারদের মধ্যে জাতীয় ক্রিকেট লিগ (এনসিএল) নিয়ে তুমুল আগ্রহ আগে থেকেই। আফগানিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে বাংলাদেশের হারের পর প্রথম শ্রেণির এই ক্রিকেটকে বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছে কর্তৃপক্ষও। অনেক দিন পর এবারের আসরে খেলবেন জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটাররা। সব মিলে উৎসবের আবহে শুরু হতে যাচ্ছে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে দেশের শীর্ষ টুর্নামেন্টের নতুন আসর।
বৃহস্পতিবার শুরু হবে বাংলাদেশের ক্রিকেট মৌসুমের প্রথম টুর্নামেন্ট জাতীয় লিগ। এবারের আসরে ভেন্যু ১০টি। প্রথম রাউন্ডে দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে চট্টগ্রামের মুখোমুখি হবে ঢাকা মেট্রো এবং রাজশাহীতে মুখোমুখি হবে সিলেট ও বরিশাল। প্রথম স্তরের ম্যাচে ফতুল্লায় গত আসরের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহীর বিপক্ষে খেলবে ঢাকা এবং খুলনায় স্বাগতিকদের প্রতিপক্ষ রংপুর।
ফিটনেসকে এবার দেওয়া হয়েছে বাড়তি গুরুত্ব। টুর্নামেন্টে খেলতে ফিটনেস পরীক্ষা বিপ টেস্টে ন্যূনতম পয়েন্ট বেঁধে দেওয়া হয় ১১। বেশিরভাগ ক্রিকেটারই পরীক্ষায় উতরে গেছেন। ক্রিকেটাররা ইতিবাচকভাবেই নিয়েছেন এটা। সঙ্গে সারা বছর ফিটনেস নিয়ে কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধাও চেয়েছেন তারা।
টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের প্রথম সিরিজের আগে ক্রিকেটারদের পূর্ণ মনোযোগ জাতীয় লিগের দিকে। চট্টগ্রাম অধিনায়ক মুমিনুল হক মনে করেন, এবারের লিগ হবে দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ।
“আমার কাছে মনে হয় খুব জাঁকজমকপূর্ণ টুর্নামেন্ট হবে। সবার মনোযোগ অনেক বেশি থাকবে। এবার খুব ভালো একটা প্রতিযোগিতামূলক টুর্নামেন্ট হবে।”
২০১৭ সালে সবশেষ এনসিএলে খেলা মুশফিকুর রহিম এবার খেলবেন রাজশাহীর হয়ে। ২০১৫ সালে সবশেষ এনসিএলে খেলা মাহমুদউল্লাহ খেলবেন ঢাকা মেট্র্রোর হয়ে। সেই আসরেই সবশেষ খেলা তামিম ইকবাল খেলবেন চট্টগ্রামের হয়ে। বিশ্রাম কাটিয়ে এই টুর্নামেন্ট দিয়ে মাঠে ফিরছেন দেশসেরা ওপেনার। মাঠে তাকে দেখতে মুখিয়ে আছেন অধিনায়ক মুমিনুল।
“তার কাছে প্রত্যাশা খুব বেশি না। প্রত্যাশা বেশি হলে ঝামেলা। তিনি যতটুকু দেবেন ততটুকুই ভালো। আমি জানি, তিনি কতটুকু খেলতে পারবেন। তিনি যেদিন খেলবেন সেদিন আর কাউকে খেলতে হবে না। এটা সবাই জানে।”
চোট সমস্যার জন্য নিজেদের সেরা দল পায়নি চট্টগ্রাম। অনেক খেলোয়াড়ই রয়ে গেছেন বাইরে। মেট্রো ম্যাচ দিয়ে অভিষেক হতে পারে ৪/৫ জন ক্রিকেটারের। প্রধান কোচ আফতাব আহমেদ মনে করেন, ক্যারিয়ারের শুরুতে তামিমের মতো একজনকে ড্রেসিং রুমে পাওয়া খুব সহায়ক হবে তরুণদের জন্য।
“এটা অনেক বড় পাওয়া। যাদের অভিষেক হবে তারা তামিম ইকবালের সঙ্গে ড্রেসিং রুম শেয়ার করবে, এটার চেয়ে বড় ব্যাপার আর কিছু হতে পারে না। আমরা তামিমকে নিয়ে খুব রোমাঞ্চিত, উত্তেজিত।”
জাতীয় লিগে খেলেই জাতীয় দলে জায়গা পেয়েছেন তামিম, মুমিনুলরা। তাদের উদাহরণ দিয়ে তরুণদের মাঠের খেলায় আরও মনোযোগী হতে বললেন আফতাব।
“আমাদের প্রথম লক্ষ্য হচ্ছে খেলাকে গুরুত্ব দেয়া। চট্টগ্রামে আমরা এটা সবার আগে চেষ্টা করছি যে, পেশাদারিত্ব যেন সবার মধ্যে আসে। এই আসরকে গুরুত্বের সাথে নিই। কেননা আমি, তামিম বা মুমিনুল-সবাই কিন্তু এই জাতীয় লিগ খেলেই দলে জায়গা করে নিয়েছি। তো নতুন দিনের ক্রিকেটারকে আমি এটাই বোঝাতে চাই যে, আমাদের যেমন জাতীয় দলে ভবিষ্যৎ হয়েছে এখান থেকে, সেটা তোমাদেরও হতে পারে। এটা প্রথম পদক্ষেপ।”
টানা জয়ের জন্য পাওয়া যাবে বোনাস পয়েন্ট। এমন আরও কিছু পরিবর্তন এসেছে এবারের আসরে। আফতাব মনে করেন, এতে আরও জমজমাট হবে লিগ।
“বোনাস পয়েন্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, বোনাস পয়েন্ট যদি না থাকে তাহলে ক্রিকেটারদের মধ্যে সেভাবে প্রতিযোগিতা থাকে না। আমরা শুরুতেই বোনাস পয়েন্টে চাচ্ছি না। আমাদের যে চিন্তা, তা হচ্ছে শুরুটা ভালো করা। পরে সেটাকে ধরে রাখা।”