এআর প্রযুক্তিতে গুগলের আরেক ধাপ

আপডেট: আগস্ট ৩১, ২০১৭, ১:১৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে অগমেন্টেড রিয়ালিটিভিত্তিক অ্যাপ বানাতে বুধবার নতুন টুল উন্মোচন করেছে গুগল।
ফোনভিত্তিক অগমেন্টেড রিয়ালিটি প্রযুক্তিতে ডিজিটাল বস্তু বাস্তব জগতের সঙ্গে পর্দায় দেখা যায়, বলা হয়েছে রয়টার্স-এর প্রতিবেদনে।
নিনটেনডো’র পোকিমন গো-এর মাধ্যমে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে প্রযুক্তিটি। আগের বছর জুলাই মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গেইমটি উন্মোচন করা হয়। এতে খেলোয়াড়দের রাস্তা, অফিস, পার্ক ও রেস্টুরেন্টসহ বিভিন্ন স্থানে রঙ্গিন অ্যানিমেটেড কার্টুন চরিত্র খুঁজতে দেখা গেছে।
বিশ্লেষকদের ধারণা গেইমটির মাধ্যমে দুই বছরে ৩০০ কোটি মার্কিন ডলার আয় করেছে অ্যাপল। অ্যাপ স্টোর থেকে ‘পোকিকয়েন’ ক্রয় থেকে এই আয় হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
এবার এই প্রযুক্তিতে মনযোগ দিয়েছে গুগলও। প্রথম পর্যায়ে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৮ এবং গুগলের নিজস্ব পিক্সেল ডিভাইসে এই প্রযুক্তি আনা হবে।
এক ব্লগ পোস্টে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, অন্তত ১০ কোটি গ্রাহকের জন্য ‘এআরকোর’ নামের প্রযুক্তি উন্মোচন করা হবে। তবে, ঠিক কবে নাগাদ এটি উন্মোচন করা হবে তা নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি।
চলতি বছরের জুন মাসে ‘এআরকিট’ নামে একই ধরনের সিস্টেম আনার ঘোষণা দিয়েছে অ্যাপল। এ বছর বসন্তে কয়েক কোটি ডিভাইসের জন্য এটি উন্মোচনের পরিকল্পনা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। এখানে গ্রাহকের দৃষ্টি আকর্ষণের কাজটি করবে গুগল ও অ্যাপল। আর তাদের সিস্টেম ব্যবহার করে গেইম ও অ্যাপ বানাবে ডেভেলপাররা। এর আগে গুগল, মাইক্রোসফটসহ অনেক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এআর গ্লাস নিয়ে পরীক্ষা চালিয়েছে। কিন্তু এতে এখন পর্যন্ত তেমন সাফল্য পায়নি কোনো প্রতিষ্ঠান। চলতি বছর অগাস্টে অ্যাপল প্রধান টিম কুক বিনিয়োগকারীদের বলেন, “এআর অনেক বড় ও গভীর এবং এটি সেই জিনিসগুলোর একটি যা আমরা পেছনে ফিরে দেখবো এবং এটির শুরু দেখে বিস্মিত হবো।” এই প্রযুক্তি বাজারে আনতে কিছুটা ছাড় দিতে হচ্ছে গুগল, অ্যাপল দুই প্রতিষ্ঠানকেই। অ্যাপলের ক্ষেত্রে বিষয়টি হলো, আইওএস ১১ চালিত ডিভাইসগুলোর জন্য উন্মোচন করা হবে এআর প্রযুক্তি। এই বসন্তে আইওএস ১১ উন্মোচনের কথা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। অন্যদিকে প্রাথমিকভাবে ট্যাঙ্গো নামের এআর সিস্টেমে এই প্রযুক্তি আনবে গুগল। এখানে সমস্যা হলো ট্যাঙ্গো-তে ডেপথ-সেন্সরের প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে এটি সমর্থন করে এমন মাত্র দুইটি স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান রয়েছে, নতুন এআরকোর প্রযুক্তির মাধ্যমে ডেপথ-সেন্সর ছাড়াই এই প্রযুক্তিকে কাজে লাগাতে চাচ্ছে গুগল।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ