এইচএসসিতে রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড সেরা বগুড়া

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২২, ১০:৪১ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধিনে অনুষ্ঠিত এইচএসসি পরীক্ষায় পাসের হারে এগিয়ে বগুড়া জেলা। এই জেলায় পাসের হার ৯৮ দশমিক ১৮ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাজশাহী জেলা। এই জেলায় পাসের হার ৯৮ দশমিক ৩ শতাংশ। রোবাবর (১৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডর পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আরিফুল ইসলাম ফলাফলের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড সূত্রে জানা গেছে- রাজশাহী জেলায় পরীক্ষার্থী ছিল ২৮ হাজার ৯৭১ জন। পাস করেছে ২৮ হাজার ৪০০ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯ হাজার ১৬৯ জন। পাসের হার ৯৮ দশমিক ৩ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ১৬ হাজার ৩৫২ জনের মধ্যে পাস করেছে ১৫ হাজার ৯৫১ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৫৭৩ জন ছাত্র। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এছাড়া ছাত্রী ১২ হাজার ৬১৯ জনের মধ্যে পাস করেছে ১২ হাজার ৪৪৯ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৫৯৬ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৮ দশমিক ৬৫ শতাংশ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় পরীক্ষার্থী ছিল ১২ হাজার ৪১ জন। পাস করেছে ১১ হাজার ৬৪৮ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৭৭৪ জন। পাসের হার ৯৬ দশমিক ৭৪ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ৬ হাজার ৪৩৮ জনের মধ্যে পাস করেছে ৬ হাজার ১৭১ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৪৭ জন ছাত্র। পাসের হার ৯৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ। ছাত্রী ৫ হাজার ৬০৩ জনের মধ্যে পাস করেছে ৫ হাজার ৪৭৭ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ১২৭ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

এছাড়া নাটোর জেলায় মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১৩ হাজার ১০০ জন। এর মধ্যে পাস করেছেন ১২ হাজার ৭৪৬ জন শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২ হাজার ১৫৩ জন। সেই হিসেবে পাসের হার ৯৭ দশমিক ৩০। এছাড়া মোট ছাত্র ছিল ৬ হাজার ৮০০ জন। পাস করেছে ৬ হাজার ৫৭৬ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯১৭ জন। পাসের হার ৯৬ দশমিক ৭১ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্রী ৬ হাজার ৩০০ জনের মধ্যে পাস করেছে ৬ হাজার ১৭০ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ২৩৬ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ। সেই হিসেবে এই জেলায় পাস ও জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ছাত্রীদের সংখ্যা বেশি।

অন্যদিকে, নওগাঁ জেলায় পরীক্ষার্থী ছিল ১৩ হাজার ৯৫৩ জন। পাস করেছে ১৩ হাজার ৪১৩ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ৪৩৪ জন। পাসের হার ৯৬ দশমিক ১৩ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ৭ হাজার ৩৪১ জনের মধ্যে পাস করেছে ৬ হাজার ৯৯৫ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৭৯ জন ছাত্র। পাসের হার ৯৫ দশমিক ২৯ শতাংশ। মোট ছাত্রী ৬ হাজার ৬১২ জনের মধ্যে পাস করেছে ৬ হাজার ৪১৮ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৫৫৫ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৭ শতাংশ।

এদিকে, পাবনা জেলায় পরীক্ষার্থী ছিল ২০ হাজার ১৮২ জন। পাস করেছে ১৯ হাজার ৫০৫ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ৭৩৫ জন। পাসের হার ৯৬ দশমিক ৬৫ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ৯ হাজার ৯৩৮ জনের মধ্যে পাস করেছে ৯ হাজার ৪৭৮ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৪৭৬ জন ছাত্র। পাসের হার ৯৫ দশমিক ৩৭ শতাংশ। মোট ছাত্রী ১০ হাজার ২৪৪ জনের মধ্যে পাস করেছে ১০ হাজার ২৭ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ২৫৯ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৮৮ শতাংশ। এই জেলায় পাসের হারে তুলনামূলকভাবে মেয়েরা এগিয়ে।

এছাড়া সিরাজগঞ্জ জেলায় পরীক্ষার্থী ছিল ২৫ হাজার ১৫৪ জন। পাস করেছে ২৪ হাজার ৪৪৪ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৭ জন। পাসের হার ৯৭ দশমিক ২১ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ১৩ হাজার ৯৪ জনের মধ্যে পাস করেছে ১২ হাজার ৫৮১ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৬৩৯ জন ছাত্র। পাসের হার ৯৬ দশমিক ৮ শতাংশ। মোট ছাত্রী ১২ হাজার ৫১ জনের মধ্যে পাস করেছে ১১ হাজার ৮৬৩ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ৩৬৮ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ।

বগুড়া জেলায় পরীক্ষার্থী ছিল ১২ হাজার ৮১৩ জন। পাস করেছে ১২ হাজার ৬৬৩ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৪১৩ জন। পাসের হার ৯৮ দশমিক ৮৩ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ১৪ হাজার ৪৪৪ জনের মধ্যে পাস করেছে ১৪ হাজার ৯৯ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ হাজার ৮৭৮ জন ছাত্র। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৬১ শতাংশ। মোট ছাত্রী ১২ হাজার ৮১৩ জনের মধ্যে পাস করেছে ১২ হাজার ৬৬৩ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৪১৩ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৮ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

জয়পুরহাট জেলায় পরীক্ষার্থী ছিল ৬ হাজার ৮৩৫ জন। এই জেলায় তুলনামূলক শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম। পাস করেছে ৬ হাজার ৫৭১ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ২৩৭ জন। পাসের হার ৯৬ দশমিক ১৪ শতাংশ। এর মধ্যে ছাত্র ৩ হাজার ৩২২ জনের মধ্যে পাস করেছে ৩ হাজার ১৬৬ জন। জিপিএ-৫ পাস পেয়েছে ৩৯১ জন ছাত্র। পাসের হার ৯৫ দশমিক ৩০ শতাংশ। মোট ছাত্রী ৩ হাজার ৫১৩ জনের মধ্যে পাস করেছে ৩হাজার ৪০৫ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৪৬ জন ছাত্রী। পাসের হার ৯৬ দশমিক ৯৩ শতাংশ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ