এএফসি কাপে মাঠের বাইরেও সতর্ক আবাহনী

আপডেট: মার্চ ১০, ২০১৭, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


অতীতটা ভোলে নি আবাহনী। ২০১০ সালে এএফসি প্রেসিডেন্টস কাপের হোম ম্যাচ দর্শকরা মাঠে বোতল ছুড়েছিল বলে ৫ হাজার মার্কিন ডলার জরিমানা গুনতে হয়েছিল তাদের। ৭ বছর আগের লঘু পাপে গুরুদন্ডের কথা মনে রেখেই এএফসি কাপের দুনিয়ায় ঢুকছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়নরা। গত মৌসুমে ফেডারেশন কাপের শিরোপা জিতে প্রথমবারের মতো এএফসি কাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে তারা। শুরুতেই হোম ম্যাচ- ১৪ মার্চ মালদ্বীপের ক্লাব মাজিয়ার বিপক্ষে খেলা দিয়ে এএফসি কাপে অভিষেক হচ্ছে আবাহনীর।
আবাহনীর চ্যালেঞ্জ দুটি। এক) দল হিসেবে ভালো করা। দুই) আয়োজক হিসেবে অতীতের দুর্নামটা ঘুচিয়ে সফলতার পরিচয় দেয়া। বৃহস্পতিবার ক্লাবের সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ম্যাচ চলাকালীন সমর্থকদের উদ্দেশ্যে আবাহনী কর্মকর্তাদের আহ্বান-তারা যেন কোনো এ বিষয়টিতে সতর্ক থাকেন। ৭ বছর আগের ওই রকম ঘটনার পুনরাবৃতি না ঘটে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আবাহনী লিমিটেডের পরিচালক হারুনুর রশীদ, কাজী এনাম আহমেদ, ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রূপু, এ টুর্নামেন্টের মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী।
বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন দলটি ভেঙে গেছে আসন্ন মৌসুমে। তাই অন্য ক্লাব থেকে ধার করে জোড়াতালির দল গড়েই এএফসি কাপে নামতে হচ্ছে আকাশি-হলুদদের। সংবাদ সম্মেলনে আবাহনীর ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রূপু বলেছেন, ‘আমাদের লক্ষ্য থাকবে পরের রাউন্ডে ওঠা। আমাদের ও অন্য ক্লাব থেকে যাদের নিয়েছি, প্রত্যাশা সবাই জয়ের কথা মাথায় রেখে খেলবেন।’
আবাহনীর প্রথম ম্যাচ ১৪ মার্চ মালদ্বীপের মাজিয়ান স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন ক্লাবের বিপক্ষে। ‘ই’ গ্রুপের অন্য ২ ক্লাব হচ্ছে ভারতের মোহনবাগান ও জেএসডব্লিউ ব্যাঙ্গালুরু।