একদিনের ব্যবধানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কমলো ৪ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস

আপডেট: জানুয়ারি ২৮, ২০২২, ১০:৪৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


নগরীতে একদিনের ব্যবধানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কমলো ৪ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। হঠাৎ তাপমাত্রার পারদ কমায় ও বাতাসে শীতের তীব্রতা বেড়েছে। দিনে বেলা রোদের দেখা মিললেও বাতাদের দাপটে উষ্ণতা ছিলো না। ঘন কুয়াশা ও হঠাৎ ঠান্ডায় জনজীবনে বিপর্যস্ত অবস্থা।

নগরীতে শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) ছিলো ১২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেল সিয়াস। এছাড়া শুক্রবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২০ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা গত দিনে ছিলো ২১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক এসএম রেজওয়ানুল হক জানান, রাজশাহীতে হঠাৎই তাপমাত্রা কমেছে। রাজশাহীর উপর দিয়ে মৃদ্যু শৈত্যপ্রবাহ বইছে। যেটা দু’তিন স্থায়ী হতে পারে। এছাড়া শুক্রবার সকাল ৬ টায় বাতাসের আর্দ্রতা ছিলো ৭০ শতাংশ এবং সন্ধ্যা ৬ টায় ৫৭ শতাংশ। বাতাস বেশি হওয়ার কারণে ঠান্ডার মাত্রাও বেশি।

এদিকে, বৈরি আবওয়ায় বিপাকে পড়েছেন খেটে-খাওয়া, ছিন্নমূল মানুষ। বিশেষ করে শহুরে ছিন্নমূল মানুষগুলো বেশি দুর্ভোগে পড়েছেন। মাঘ মাসের শীতের এই তীব্রতায় ঠান্ডা হাড় পর্যন্ত কাপুনি ধরছে। জীবিকার তাগিদে ঘনকুয়াশা, মেঘ আর হাড় কাঁপানো শীতের মধ্যেই সকাল-সন্ধ্যা এক করে কাজ করে যাচ্ছেন। দিনের বেলা রোদের দেখা মিললেও শীতের অনুভূতি বেড়েছে দ্বিগুণ। তাই সন্ধ্যার পর থেকেই শহরের নিম্ন আয়ের মানুষকে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করতে দেখা যাচ্ছে।