‘একলাইন বাংলা লিখি, তবুও শুদ্ধভাবে লিখি’

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৭, ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে ব্যক্তির সচেতনতা জরুরি উল্লেখ করে শিক্ষাবিদ, লেখক ও অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, ‘ভারতে গেলে আমরা দেখি সেখানে তারা প্রত্যেকটা দোকান-অফিস-আদালতে সাইনবোর্ডে হিন্দিতে লিখছে। তারা চেষ্টা করে তাদের মাতৃভাষায় সবকিছু বলতে ও লিখতে। সেখানে আমরা কতটুকু বলছি বা লিখছি।  বাংলা ভাষা ব্যবহারের দায়িত্ব কিন্তু আমাদেরই।’
তিনি বলেন, ‘বর্তমানে শিক্ষার্থীরা সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করে ফেসবুক। সেখানে তারা বাংলিশ ভাষা ব্যবহার করে।  এতে যে ভাষার কত ক্ষতিসাধন হচ্ছে তা তারা বুঝতে পারছে না। তাই ভাষা ব্যবহারে তাদের সচেতন হওয়া প্রয়োজন।  দরকার হলে একলাইন বাংলা লিখি, কিন্তু তা যেন শুদ্ধভাবে লেখা হয়। ’
শুক্রবার বেলা ১২টায় চট্টগ্রাম মিউনিসিপ্যাল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রাঙ্গণে ‘পিপীলিকা বাংলা উৎসব-২০১৭’ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের সঙ্গে এসব কথা বলেন তিনি।
ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, পিপীলিকা বাংলা উৎসব এর কাজ হল বিভিন্ন বিভাগে গিয়ে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বাংলা ভাষার উপর দক্ষতা বাড়ানো। এরই অংশ হিসেবে চট্টগ্রামে আসা। আমরা পুরো একটি দিন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সময় কাটাই। এক ঘণ্টার একটি পরীক্ষায়ও নিই। পরীক্ষার প্রশ্নগুলো সম্পূর্ণ পাঠ্যবইয়ের বাইরে থেকে দেয়া হয়। সবচেয়ে বড় কথা শিক্ষার্থীরা যাতে নিজের ভাষার ব্যাপারে দক্ষ হয় সেটিই আমাদের উদ্দেশ্য। নিজের ভাষা শুদ্ধভাবে যাতে লিখতে পারে সেজন্য আমাদের এই আয়োজন।
বাংলা ভাষা ও বানান বিষয়ে যাবতীয় ভয় দূর করার উদ্দেশ্যে স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ‘বাংলা নিয়ে নানান খেলা সারাবেলা’ স্লোগানে অনুষ্ঠিত এ উৎসবের শিরোনাম রাখা হয় ‘শব্দ কল্প দ্রুম’।  অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল।
৭০টিরও বেশি স্কুল-কলেজের পঞ্চম থেকে দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ুয়া প্রায় ২ হাজার শিক্ষার্থী এতে অংশগ্রহণ করে। তাদের কাছ থেকে এক ঘণ্টার একটি পরীক্ষাও নেয়া হয়। পরীক্ষায় প্রথম ৫০ জনকে পুরস্কার দেয়া হবে বলে আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়।- বাংলানিউজ