একাদশে শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিলো স্বেচ্ছাসেবীরা

আপডেট: September 18, 2020, 9:57 pm

শাহিনুল আশিক:


শিক্ষক ছাড়াই কলেজের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হলো শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিলো শিক্ষার্থীরা। রাজশাহীর শাহ্ মখদুম কলেজে ঘটেছে এমন ঘটনা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির রেড ক্রিসেন্ট দল ও রোভার স্কাউট দলের সদস্যরা ৫দিন ব্যাপি এই ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করেছেন। এতে শিক্ষকরা ছিলেন সহযোগিতার ভূমিকায়।
সংগঠন দুটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, করোনাভাইরাসের এমন সময় শিক্ষক-শিক্ষাথীরা যেনো আক্রান্ত না হয়। এমন ভালোবাসার জায়গা থেকে তারা কাজ করেছে।
কলেজটির ভর্তি কমিটির সদস্য ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক শরিফুল ইসলাম জানায়, দুই সংগঠনের ১৪ জন কাজ করেছে। তারা ৫ দিনে ৫৩০ জন শিক্ষার্থীর ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৩০০ জন শিক্ষার্থী, মানবিক বিভাগে ২০০ জন শিক্ষার্থী ও ব্যবসা শিক্ষা বিভাগে ৩০ শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে কলেজটিতে।
জানা গেছে, চলতি মাসের ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে একাদশ শ্রেণির ভর্তি সম্পন্ন কার্যক্রম শুরু হয় শাহ্ মখদুম কলেজে। শেষ হয় ১৭ সেপ্টেম্বর। ভর্তি চলাকালীন কলেজের রেড ক্রিসেন্ট দলের ৮ জন ও রোভার স্কাউট দলের ৫ জন সদস্য অংশগ্রহণ করে। ভর্তি কার্যক্রমে কলেজের মূল ফটকে অস্থায়ী ক্যাম্প বসায় তারা। সেখানে শরীরের তাপমাত্রা মাপা ও হ্যান্ড স্যানিটাইটার দেওয়া হচ্ছে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের। এরপরে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীদের শুরু হচ্ছে ভর্তি প্রক্রিয়া।
এছাড়া শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে সচেতন করা হয় সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে। যে সকল শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা কলেজে মাস্ক ছাড়া কলেজে প্রবেশ করেছেন তাদের মাস্ক সরবরাহ করা হয়েছে। এছাড়া হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রদান করা হয়।
কলেজে ভর্তি হতে আসা মোসা. নূপুর ও মো. নাইম জানায়, এমন উদ্যোগ তাদের কাছে ব্যতিক্রমি মনে হয়েছে। সব বিষয়ে শিক্ষকদের প্রশ্ন করা সম্ভব হয় না। করোনার এমন সময়ে রেড ক্রিসেন্ট ও রোভার স্কাউটের সদস্যদের সহযোগিতায় মুগ্ধ তারা। তারা জানায়, এতে তারাও শিক্ষা নিলো। দুর্যোগময় সময়ে মানুষের পাশে থাকার।
কলেজ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির দল নেতা রাহুল ইসলাম জানান, প্রতিবছর শিক্ষকরা ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করে থাকেন। শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে তারা ভর্তির কাজগুলো সম্পন্ন করেন।
তিনি আরও বলেন, শিক্ষকরা আমাদের গুরুজন। মন্দাকালীন তাদের পাশে দাঁড়াতে পেরে নিজেরা গর্বিত মনে করছি। আগামিতেও ভালো কাজে সবার পাশে থাকতে চাই।
কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপের দল নেতা আশরাফুল হোসেন জানায়, শিক্ষার্থীদের সহাযোগিতার জন্য কাজ করেছি। স্বেচ্ছায় সেবা দিয়েছি। মাস্ক, স্যানিটাইজার ও ট্যাম্পারাজার মেপে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভর্তির কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে। এতে ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থীরা প্রশংসা করেছে।
শাহ মখদুম কলেজের অধ্যক্ষ এসএম রেজাউল ইসলাম বলেন, কলেজের দুটি সংগঠন অনেক সুশৃঙ্খল। তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিজেরা নিরাপদে থেকে সুন্দরভাবে ভর্তির কাজ সম্পন্ন করেছে। যদিও ভর্তি সিস্টেম অনলাইনে। তার পরেও অনেক কাজ থেকে যায়।
তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের ভালো কাজের জন্য উৎসহ দিতে হবে। তারা এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকদের থেকে উৎসাহ পেয়ে থাকে। আমাদের লক্ষ্য এই শিক্ষার্থীরা আগামিতে দেশ ও দশের জন্য ভালো কাজ করে থাকবে। সেই মন-মানসিকতা তৈরির লক্ষে শিক্ষাদিয়ে যাচ্ছি আমরা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ