একুশের সেই অবিনাশী গান যেভাবে এল

আপডেট: মে ১৯, ২০২২, ৮:৫৩ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


মায়ের ভাষার দাবিতে ফুঁসে ওঠা বাঙালির মিছিলে পুলিশ গুলি ছুড়েছিল পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর নির্দেশে; সেই আন্দোলনের সংগ্রামী রফিকের নিথর দেহ হাসপাতালে দেখে কলেজ ছাত্র আবদুল গাফফার চৌধুরীর হৃদয়ে জাগে ভাই হারানোর বেদনা।

তিনি লেখেন এক অমর কবিতা: আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি। প্রথমে আব্দুল লতিফ ও পরে আলতাফ মাহমুদের সুরে সেই কবিতা হয় গান।

বাংলা ভাষা, ভাষা আন্দোলন আর বাঙালির ইতিহাসে অমর হয়ে যাওয়া সেই গান সৃষ্টির গল্প এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন সাংবাদিক, কলামিস্ট আবদুল গাফফার চৌধুরী।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ছিল পূর্ববাংলা ব্যবস্থাপক পরিষদের বাজেট অধিবেশন। সেদিন ডাকা হয় ধর্মঘট। ধর্মঘট প্রতিহত করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও তার আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করে প্রশাসন।

সেদিন ১৪৪ ধারা ভেঙে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে মিছিল নিয়ে এগিয়ে যায় বাংলা মায়ের দামাল সন্তারেরা। পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর নির্দেশে মিছিলের ওপর পুলিশের গুলি চলে; শহীদ হন রফিক, শফিক, জব্বার, বরকত, শফিউদ্দীন, সালামসহ আরও অনেকে।

ঢাকা মেডিকেলে আহত ছাত্রদের দেখতে গিয়েছিলেন তখনকার ঢাকা কলেজের ছাত্র আবদুল গাফফার চৌধুরী। মেডিকেলের বহির্বিভাগে তিনি ভাষা সংগ্রামী রফিকের মাথার খুলি উড়ে যাওয়া লাশ দেখতে পান।

লাশটি দেখে তার বারবার মনে হতে থাকে, এটা যেন তার নিজের ভাইয়েরই রক্তমাখা লাশ। তখনই তার মাথায় আসে একটি লাইন, “আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি।”
এরপর ইতিহাস হয়ে যায় সেই কবিতা। যাতে সুর করেন আলতাফ মাহমুদ। হয়ে ওঠে বাঙালির ভাষার গান, যা পরে ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বময়।

আব্দুল গাফফার চৌধুরীগাফফার চৌধুরী বলেছিলেন, “রফিকের নিথর দেহ পড়ে আছে। মাথার খুলি নেই। মনে হচ্ছে যেন আমার ভাই পড়ে আছে। তখন হঠাৎ করেই ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ এই লাইন মুখে চলে আসে। গানটি লিখতে আমার কোনো কৃতিত্ব নেই। গানটা এমন সময় লিখেছিলাম নিজের অজান্তেই।”
২২ ফেব্রুয়ারি শহিদদের স্মরণে গায়েবি জানাজা হয়। জানাজা শেষ হওয়ার পর শুরু হয় গণমিছিল, গাফফার চৌধুরী সেদিন পুলিশের পিটুনিতে আহত হন।

ওই অবস্থাতেই কবিতার পরের লাইনগুলো লিখতে শুরু করেন গাফফার চৌধুরী। এরপর গেন্ডারিয়ায় গোপন এক সভায় একটি ইশতেহার প্রকাশ করা হয়। সেই ইশতেহারেই প্রথম কবিতাটি ছাপানো হয়।
প্রথমে আবদুল লতিফ সেই কবিতায় সুরারোপ করেন; ১৯৫৩ সালে গুলিস্তানের ব্রিটেনিয়া হলে ঢাকা কলেজের নব নির্বাচিত ছাত্র সংসদের অভিষেক অনুষ্ঠানে গানটি প্রথম পরিবেশন করা হয়।

১৯৫৩ সালের মার্চে হাসান হাফিজুর রহমান ‘একুশে সংকলনে’ এটি প্রকাশ করেন; কিন্তু পাকিস্তান সরকার সংকলনটি বাজেয়াপ্ত করে।

পরে গানটিতে সুরারোপ করেন আলতাফ মাহমুদ, সেই সুরেই ১৯৫৪ সালে গানটি প্রভাতফেরিতে প্রথম গাওয়া হয়।
এখন প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারিতে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সেই অবিনাশী গান কণ্ঠে নিয়ে প্রভাতফেরিতে যায় বাংলাদেশের মানুষ। বিবিসি শ্রোতা জরিপে বাংলা ভাষার শ্রেষ্ঠ গানের তালিকায় এর অবস্থান তৃতীয়।

১৯৭০ সালে চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান তার বিখ্যাত সিনেমা ‘জীবন থেকে নেওয়া’তে গানটি ব্যবহার করেছিলেন। হিন্দি, মালয়, ইংরেজি, ফরাসি, সুইডিশ, জাপানিসহ ১৫টি ভাষায় এখন গাওয়া হয় একুশের গান।

‘একুশের গান’ হিসেবে এখন গাওয়া হয় গাফফার চৌধুরীর সেই কবিতার প্রথম ছয় লাইন। পুরো কবিতাটি ৩০ লাইনের।
তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ