একেই বলে ‘লটারি ভাগ্য’

আপডেট: এপ্রিল ৭, ২০১৭, ১২:২১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



প্রথমবার এই দম্পতি লটারি জিতেছিলেন ১৯৮৯ সালে। সেসময় একলক্ষ মার্কিন ডলার পেয়েছিলেন তারা।
মি ফিংক এবং তার স্ত্রী বারবারার ‘লটারি ভাগ্য’ যে সুপ্রসন্ন তারই নজির হিসেবে দ্বিতীয়বার তারা লটারি জয় করেন ২০১০ সালে, আয় করেন ৯০ হাজার মার্কিন ডলার। তবে সর্বশেষ ফেব্রুয়ারিতে ওয়েস্টার্ন কানাডা লটারি জ্যাকপট তাদের জয় করা সবচেয়ে বেশি পরিমাণ অর্থকড়ির লটারি। এবার তারা পেয়েছেন ৬০ লক্ষ মার্কিন ডলার।
এই অর্থ দিয়ে ক করবেন তারা?
আয়োজকদের এই দম্পতি জানিয়েছেন সন্তানদের জন্যই কাজে লাগাতে চান এই টাকা।
মিসেস ফিংক বলেন, “পরিবারই সবার আগে। আমাদের মেয়েরা এবং নাতি-নাতনিরা যেন ভালভাবে থাকতে পারে সেটাই আমরা চাই”।
এছাড়া বেড়ানোর এবং নতুন বাড়ির পরিকল্পনা রয়েছে এই দম্পতির। মি. ফিংক বলেছেন, বারবারার নতুন একটি বাড়ির তৈরির ইচ্ছা ছিল এবার সে তা পূরণ করতে পারবে”।
তৃতীয়বার লটারি জয়ের মুহূর্তের বর্ণনা দিয়ে মিসেস ফিংক বলছিলেন, যখন বুঝতে পারলেন তারাই বিজয়ী হয়েছেন তখন তার স্বামী কাজের জন্য শহরের বাইরে ছিলেন। ফোনে তার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে প্রথমবার তাকে পাননি।
কিছুক্ষণ অপেক্ষার পরে আবার ফোন দিলে মি. ফিংক ফোন ধরেন এবং তার স্ত্রী বলে ওঠেন, “আমি আবারও এটা করলাম”।- বিবিসি বাংলা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ