এক জয়েই বদলে গেলো কুমিল্লার পরিবেশ!

আপডেট: নভেম্বর ২১, ২০১৬, ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
একের পর এক পরাজয়। মুখ গোমড়া করে বসে থাকাকেই যেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স সমর্থকরা এবার নিয়তি হিসেবে ধরে নিয়েছিল। একটি জয়ের হাহাকার। যে হাহাকারে তৈরি হয়েছে কারবালা। অবশেষে একটি জয়ে তৃষ্ণা খানিটকা মিটেছে। স্বস্তি ফিরেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের শিবিরে। গোমড়া মুখগুলোও উদ্ভাসিত হয়ে উঠেছে। প্রত্যয় তৈরি হয়েছে পরবর্তী ম্যাচেও জয়ের জন্য। সেই ধারাবাহিকতাই এবার ধরে রাখার লক্ষ্য বিপিএলে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স শিবিরে।
অথচ প্রথম থেকে হারতে থাকা দলটি যেন দাঁড়িয়েছিল একেবারে খাদের কিনারায়। সবারই বিশ্বাস ছিল, একটি জয় ফিরিয়ে আনবে আত্মবিশ্বাস, ফিরবে কাঙ্ক্ষিত ধারাবাহিকতা। শেষ পর্যন্ত শনিবার সেই কাক্সিক্ষত জয়টি এসে গেলো ভিক্টোরিয়ান্স শিবিরে। টানা পাঁচ ম্যাচ হারার পর রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে জয় পায় বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। আর এই এক জয়েই পুরোপুরি বদলে গেলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স শিবিরের পরিবেশ। এখন দারুণ উজ্জীবিত কুমিল্লা শিবির। এ জয়কে প্রেরণা হিসেবে নিয়েই পরবর্তী ম্যাচে মাঠে নামতে চান দলটির প্রধান কোচ মিজানুর রহমান বাবুল।
ঢাকা পর্ব শেষে চট্টগ্রামে এসে টানা দুই ম্যাচ খেলেছে কুমিল্লা। রোববার খেলা না থাকায় দলের অধিকাংশ খেলোয়াড়ই কাটিয়েছেন টিম হোটেলে। আগের ম্যাচে না খেলা কয়েকজন খেলোয়াড়কে এদিন অনুশীলন করান কোচ বাবুল। চট্টগ্রাম বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স মাঠে অনুশীলন করেন তারা। অনুশীলন শেষে জাগোনিউজকে কুমিল্লার কোচ বলেন, ‘একটা মোমেন্টাম দরকার ছিল, আল্লাহ আমাদের সেটা এনে দিয়েছে। এখন বাকিটুকু ওই উদ্দীপনায় আমরা খেলবো। তবে আমাদের সব ম্যাচই এখন ডু অর ডাই।’
একটা জয়েই বদলে গেছে দল। অনুশীলনে আসা কুমিল্লার ক্রিকেটারদের চলন-বলন দেশে খুব সহজেই অনুমেয় এটা। যদিও বিষয়টা এখনই মানতে নারাজ বাবুল। একটা প্রেরণা পেয়েছেন, তাই দলের ক্রিকেটারদের আত্মবিশ্বাস বেড়েছে বলে জানান তিনি, ‘আমরা পাঁচটা ম্যাচ খেলার পর এখন একটা জয়ের দেখা পেয়েছি। তো একটা মোটিভেশন আছেই। দলে এখন একটা উৎফুল্লতাও এসেছে। এটা হয়তো কাজে দেবে, আগামী ম্যাচে খেলার জন্য। আমরা চেষ্টা করছিলাম; কিন্তু হচ্ছিল না। কালকে আমরা একটা জয় পেয়েছি। ইনশাল্লাহ এটা নিয়েই আগামী ম্যাচেও জয় পেতে চেষ্টা করবো।’
দলের প্রথম জয়ের পর রোববার অনুশীলন করতে আসেনি মূল খেলোয়াড়রা। তাই দলের রিজার্ভ বেঞ্চের খেলোয়াড়দের নিয়ে অনুশীলন করেন বাবুল। তবে কি এক জয়েই রিলাক্স তারা? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমাদের রিলাক্সের সুযোগ নেই। এতগুলো ম্যাচের মধ্যে মাত্র একটা ম্যাচে জয় পেয়েছি, আমাদের রিলাক্সের সুযোগ কোথায়? গতকাল যারা খেলেছে, তাদের কয়েকজন আজকে অনুশীলনে এসেছে। রিলাক্স কিছু না। যারা পরপর দুই দিন ম্যাচ খেলেছে, তারা আজকেও অনুশীলন করলে কাল খেলতে পারবে না। এখন জিম সেশন ও স্ট্রেচিং সেশন আছে। সেটা তারা হোটেল করবে, যা তাদের একটু রিলাক্সও করবে।’
এবারের আসরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সই একমাত্র দল, জাদের প্রথম জয়ের দেখা পেতে আসরের অর্ধেক সময় পার করতে হয়েছে। তবে দেরিতেও হলেও দলের জয়ে তৃপ্ত বাবুল। যদিও আগের ম্যাচে আরও বেশি রান হতে পারত বলে মনে করেন তিনি, ‘সবসময়ই বলে আসছি আমাদের দল খারাপ নয়। তবে ফলটা পক্ষে আসছিল না। টি-টোয়েন্টি ম্যাচ হচ্ছে এমন, যে যেদিন ভালো খেলে, সেদিন তার। উপরের দিকে রান হচ্ছিল না। কালকে যতটুকু এসেছে আরেকটু চেষ্টা করলে হয়তো ১৭০-এ গিয়ে ঠেকত। তারপরও আমি সন্তুষ্ট, আমাদের ছেলেরা ওইটা (১৫২ রান নিয়ে) নিয়ে জান-প্রাণ দিয়ে লড়াই করেছে।’